সভাপতি শেখ হাসিনা, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের

hasina-v-kaderপার্বত্যবাণী ডেস্ক: বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে শেখ হাসিনা পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন। প্রথমবারের মতো দলের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন বিদায়ী কমিটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ওবায়দুল কাদের। আজ (২৩ অক্টোবর ২০১৬) রবিবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিশনে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের দু’দিনব্যাপী ২০তম জাতীয় সম্মেলনের কাউন্সিল অধিবেশনে তারা সর্বসম্মতিক্রমে নির্বাচিত হন। এদিকে, বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে নতুন কমিটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নির্বাচিত করা হয়েছে।

সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচনের পর সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যের নাম ঘোষণা করা হয়। নির্বাচিতরা হলেন সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মোহাম্মদ নাসিম, কাজী জাফরউল্ল্যাহ, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, আব্দুল মান্নান খান, ড. আব্দুর রাজ্জাক, ফারুক খান, রমেশ সেন, পিযুষ ভট্টাচার্য্য, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন ও নুরুল ইসলাম নাহিদ।
৪ সদস্যের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হচ্ছেন মাহাবুবউল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, জাহাঙ্গীর কবীর নানক ও আব্দুর রহমান। কোষাধ্যক্ষ পদে এইচএন আশিকুর রহমানের নাম ঘোষণা করা হয়।

 

নতুন কমিটি গঠন প্রক্রিয়ায় বিদায়ী কমিটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সৈয়দা সাজেদ চৌধুরী সভাপতি হিসেবে শেখ হাসিনার নাম প্রস্তাব করলে নির্বাচন কমিশননের দায়িত্বপ্রাপ্ত অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন তার প্রতি সমর্থন জানান। এ সময়  উপস্থিত কাউন্সিলররা  তাতে সায় দেন। অন্যদিকে বিদায়ী কমিটির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সাধারণ সম্পাদক পদে ওবায়দুল কাদেরের নাম প্রস্তাব করলে অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন তার প্রতি সমর্থন জানান।

বিদেশে থাকাকালে ১৯৮১ সালের সম্মেলনে শেখ হাসিনা প্রথমবারের মতো দলের সভাপতি নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৮৭, ১৯৯২, ১৯৯৭, ২০০২, ২০০৯ ও ২০১২ সালে তিনি সভাপতি নির্বাচিত হয়ে আসছেন। দলটির প্রতিষ্ঠাতাদের অন্যতম ও স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু টানা ৪ বার দলটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এর আগে তিনি ৪ টার সাধারণ সম্পাদক এবং প্রতিষ্ঠার সময়ে বঙ্গবন্ধু দলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের পদটি পান। এছাড়া অন্যান্য সভাপতির মধ্যে আবদুল হামিদ খান ভাসানী ৪ বার, এইএচএম কামারুজ্জামান ২বার এবং আব্দুর রশীদ তকর্বাগীশ ও আব্দুল মালেক এক বার করে সভাপতি নির্বাচিত হন। এদিকে সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে বঙ্গবন্ধু ছাড়া জিল্লুর রহমান ৫ বার, তাজউদ্দিন আহমেদ, আবদুর রাজ্জাক ও সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ২ বার এবং শামসুল হক, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ও আবদুল জলিল এক টার্মেরর জন্য সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। আওয়ামী লীগের বিদায়ী কমিটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ওবয়দুল কাদের এবার প্রথমবারের মতো সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হলেন।

ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ওবায়দুল কাদের দীর্ঘদিন ধরে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। তিনি ২০০২ সালের সম্মেলনে দলের ১নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০৯ ও ২০১২ সালে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নির্বাচিত হন। নোয়াখালী অঞ্চল থেকে নির্বাচিত এই সংসদ  সদস্য বর্তমানে সরকারের সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে আছেন।

এর আগে আওয়ামী লীগের পুরনো কমিটি বিলুপ্ত করে বিকাল পৌনে ৫টায় আলীগের বর্তমান কমিটি বিলুপ্ত করে মঞ্চ থেকে নেমে কাউন্সিলর সারিতে বসেন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।
এরপর নেতা নির্বাচন করতে মঞ্চে ওঠে তিন সদস্যের নির্বাচন কমিশন। এই তিনজন হলেন, অ্যাডভোকেট ইউসুফ হুমায়ুন, ড. মশিউর রহমান ও রাশেদুল আলম।
বিদায়ী ভাষণে কাউন্সিলরদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, ‘আপনারা বলেছেন, আজীবন আমাকে নেতৃত্ব দিতে। এটা সম্ভব নয়। আমি তো মনে করি, আপনারা আমাকে যে দায়িত্ব দিয়েছেন, আমি তা পূরণ করেছি।’ তিনি বলেন, ‘দলকে দ্বিতীয় দফা ক্ষমতায় এনেছি। তিনবার সরকার গঠন করেছি, তিনবার প্রধানমন্ত্রী হয়েছি। আপনারা আমাকে সম্মান দিয়েছেন। আমি মনে করি, আমার কাজ শেষ।’তবে উপস্থিত কাউন্সিলররা সমস্বরে ‘না-না-না’ বলতে থাকেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*