সংবাদিকদের সড়ক অবরোধের ঘোষণা

সাগর রুনিপার্বত্যবাণী ডেস্ক: সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যাসহ সকল সাংবাদিক হত্যা, হয়রানি-নির্যাতনের বিচার দাবিতে ১১ মার্চ জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছেন সাংবাদিক নেতারা। একই সাথে সরকার ও তদন্ত সংস্থাগুলোর ব্যর্থতার কথা উল্লেখ করে একটি গণতদন্ত কমিশন করে সংশ্লিষ্টদের জিজ্ঞাসাবাদের উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানানো হয়। সাগর-রুনি হত্যার ৫ বছর উপলক্ষে শনিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সামনে আয়োজিত এক সমাবেশ বক্তৃতাকালে এ ঘোষণা দেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের (ডিইউজে) সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী। পরে অন্যান্য নেতৃবৃন্দ এই কর্মসূচির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন।
এ সময় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও সাংবাদিক নেতা শওকত মাহমুদ বলেন, মেধাবী সাংবাদিক সাগর-রুনি হত্যার শিকার হয়েছে আজ পাঁচ বছর। এখনো বিচারতো দূরের কথা, এখনো তদন্তই শেষ হয়নি। তিনি বলেন, ডিবি (পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ) ব্যর্থ হয়েছে। এর পর র‍্যাবের মতো এলিটফোর্স ৪৬ বার সময় নিয়েও তদন্ত শেষ করে প্রতিবেদন জমা দিতে পারেনি। পাঁচ বছর ধরেই শুনছি এই অচিরেই বিচার হবে। কবে সেই অচিরেই এর শেষ হবে।
শওকত মাহমুদ বলেন, অবিলম্বে যদি বিচার শেষ না হয়, তাহলে আমরা সাংবাদিক সমাজ গণতদন্ত কমিশন গঠন করব। হত্যাকাণ্ডের পর যতজন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন তাদের সবাইকে এবং পুলিশের আইজি, সকল ব্যর্থ তদন্ত কর্মকর্তাদের ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। কেন তারা ব্যর্থ? কেন তারা এই তদন্ত প্রক্রিয়া শেষ করতে পারেনি। কেন তাদের এ অবস্থান? তিনি এ জন্য সাংবাদিক সংগঠনগুলোকে সাংবাদিক হত্যা-নির্যাতন ইস্যুতে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের আহ্বান জানান এবং যে কোনো কর্মসূচিতে সমর্থন জানান।
বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) মহাসচিব ওমর ফারুক বলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীরা যারা যখন চেয়ারে বসেছে উদ্ভট উদ্ভট মন্তব্য করেছেন। আর আমাদের একজন মন্ত্রী আছেন। তিনি হলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। অথচ তিনি এর বিরুদ্ধে কিছু বলেন না, মুখে কুলুপ এটে বসে আছেন। তিনি আমাদের নিরাপত্তা নিয়ে কথা বলেন না। আমাদের বেতন নিয়ে কথা বলেন না। আর একটি চক্র আমাদের সাংবাদিকদের ঐক্য ধ্বংস করে বিভাজন সৃষ্টি করে রেখেছেন। সবাইকে যুগপৎ আন্দোলনের জন্য ঐক্যবদ্ধ হবার আহ্বান জানান তিনি।
ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী তার বক্তব্যে সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যাসহ সকল সাংবাদিক হত্যা, হয়রানি-নির্যাতনের বিচার দাবিতে ১১ মার্চ জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছেন।
এছাড়াও বিচার না হওয়া পর্যন্ত প্রতি মাসের ১১ তারিখে সাগর-রুনির জন্য পত্রিকাগুলোতে দুই ইঞ্চি দুই কলাম জায়গা বরাদ্দ রাখার এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়াতে সংবাদ প্রচারের সময় দুই মিনিট ‘ব্ল্যাক আউট’ করার  আহ্বান জানানো হয়।
মেহেরুন রুনির ভাই নওশের আলম রোমান বলেন, একে একে ৫ বছর। কবে পাব আমরা স্বজন হারানোর বিচার। কেন এই বিচার হচ্ছে না? কেন এখনো তদন্ত শেষ হচ্ছে না? সাগর-রুনি কি এ দেশের নাগরিক ছিলেন না? তা হলে কেনো তাদের হত্যার বিচার হবে না? খুনিরা কি সরকারের চেয়েও শক্তিশালী?
কর্মসূচির প্রথমার্ধে উপস্থিত ছিল সাগর-রুনি দম্পতির একমাত্র সন্তান মাহির সরওয়ার মেঘ।
ডিআরইউ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোরসালিন নোমানীর সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য রাখেন রুহুল আমিন গাজী, শাবান মাহমুদ, কুদ্দুস আফ্রাদ, সৈয়দ আবদাল, কাদের গণি চোধুরী, অমিয় ঘটক পুলক, আব্দুল জলিল ভূঁইয়া, সাজ্জাদ আলম তপু, ইলিয়াস খান, ইলিয়াস হোসেন, কফি কামাল, রাজু আহমেদ, মানিক মুন্তাসির, সারোয়ার আলম, নাসিমুন আরা মিনু প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*