শোকের গ্রাম চোংড়াছড়ি: শোক সন্তুপ্ত পরিবারের পাশে কংজরী

chongrachhariমুহাম্মদ আবুল কাসেম: একই পরিবারের ৩জন, একই গ্রামের ৬টি তাজা প্রাণ ঝড়ে যাওয়ার ঘটনায়  পাহাড়ের মারমা অধ্যুষিত এক পুরো গ্রাম যেন শোকের গ্রামে পরিনত হয়েছে। এক মায়ের চোখের জ্বল গড়ে পড়ার আগেই অন্যদিকে স্বজনদের আহাজারী। একই উপজেলার ৬জন সহ ৮টি তাজা প্রানের জন্য কাঁদছে পুরো জেলার সর্বত্র মহল। মর্মান্তিক এই ইতিহাসের অধ্যয় খাগড়াছড়ির মহালছড়ির চোংড়াছড়ি নামক গ্রামের। মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় ৮টি তাজা প্রানের মধ্যে ৬জনই ওইগ্রামের। যারা গতকাল শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে জেলার আলুটিলা ধাতুচৈত্য বৌদ্ধ বিহারে চন্দ্রমনি মহাস্থবির ভান্তের অন্ত্যোষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানে আলুটিলা ঘাতক মালবাহী ট্রাকের চাপায় নিহত হন।

সেই শোকাবহ চোংড়াছড়ি গ্রামে আজ শনিবার অশ্রুজ্বলে স্বজনদের পাশে দাঁড়িয়ে সমবেদনা জানিয়েছেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী।

এসময় তিনি ফিটনিসবিহীন যান চলাচল বন্ধ করার ব্যবস্থা গ্রহণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেন। এসময় তিনি ওই গ্রামের ছয় নিহত পরিবারের হাতে ১৫হাজার টাকা করে অনুদান প্রদান করেন। তিনি বলেন, মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনায় যারা স্বজন হারিয়েছেন তাদের এই পৃথিবীর সকল সম্পদক দিলেও সেই ক্ষতিপূরণ কখনো পূরণ হবার নয়। স্বজন হারা এই সব পরিবারের পাশে দাঁড়ানো নৈতিক দায়িত্ব। তিনি জানান, নিহতদের পরিবারের পাশে দাঁড়াতে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈচিং এমপির দৃষ্টি আকর্ষন করা হয়েছে। এসময় তিনি সমাজের সকলকে শোকার্থ পরিবারের প্রতি সমাবেদনা জ্ঞাপনের অনুরোধ জানিয়েছেন। এসময় খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য জুয়েল চাকমা, মহালছড়ি সদর ইউপি চেয়ারম্যান রতন কুমার শীলসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

প্রসঙ্গত: গতকাল শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে পর্যটন এলাকা আলুটিলা বটতলা এলাকায় ধাতুচৈত্য বৌদ্ধ বিহারে বিহারাধাক্ষ্য চন্দ্রমনি মহাস্থবিরের অন্ত্যোষ্টিক্রিয়ায় অংশগ্রহনকারীদের ওপর বেপরোয়া মালবাহী ট্রাক চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে-৭জন। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চট্টগ্রামে মারা যান আরো-১জন। এছাড়াও আহত হয় প্রায়-৯জন। নিহতদের মধ্যে মহালছড়ি উপজেলার চোংড়াছড়ি হেডম্যান পাড়ার একই পরিবারে ৩ জন সহ মোট ৬ জন নিহত হয়। এদিকে, শুক্রবার  বিকেল ৪ টার দিকে খাগড়াছড়ি মেডিকেল থেকে নিকটাত্মীয়দের কাছে হস্তান্তর করা হয়। নিহতদের মরদেহ বিকাল পৌনে ৫টায় মহালছড়ি উপজেলার চোংড়াছড়ি হেডম্যান পাড়া পৌঁছালে নিহত স্বজনদের কান্নায় এলাকার আকাশ বাতাস ভারি হয়ে ওঠে। শোকের গ্রামে

নিহতরা হলেন, মহালছড়ি উপজেলার চোংড়াছড়ি হেডম্যান পাড়ার বাসিন্দা চাইলাপ্রু মারমার স্ত্রী নেইম্রা মারমা (৩৮), মেয়ে নুনুমং মারমা (৬) মেয়ে- ববি মারমা (১৩), মমং মারমার মেয়ে মাটিং মারমা (৬),মং মারমার ছেলে উচানুং মারমা (১৫)এসএসসি পরিক্ষার্থী, মংক্রু মারমার ছেলে অংক্রইচিং মারমা (১৫)এসএসসি, পরিক্ষার্থী ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*