রায়ে কোনো প্রভাব পড়বে না -অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম

mahbube_alamপার্বত্যবাণী ঢাকা অফিস:
প্রধান বিচারপতি ও উচ্চ আদালত নিয়ে সরকারের দুই মন্ত্রীর বক্তব্য যুদ্ধাপরাধের মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলীর আপিলের রায়ে কোনো প্রভাব পড়বে না বলে জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

সোমবার সুপ্রিম কোর্টের নিজ কার্যালয় সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান। অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘কোনো মন্ত্রী, রাজনীতিবিদ বা আইনজীবীর বক্তব্যের কারণে বিচারকাজে প্রভাব পড়ে না, পড়বেও না।’ তিনি বলেন, ‘সাক্ষ্য-প্রমাণে উপস্থাপিত তথ্যের ভিত্তিতেই আদালত বিচারকাজ করে থাকেন। আমি আশা করছি, মানবতাবিরোধী অপরাধে মীর কাসেম আলীর চরম দণ্ড বহাল থাকবে।’ মাহবুবে আলম বলেন, ‘অন্যান্য মামলার মতো এ মামলায়ও লিখিতভাবে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেছি। আশা করি, আগামীকাল (মঙ্গলবার) আদালত ন্যায়বিচার ঘোষণা করবেন।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘নিম্ন আদালতে যে রায় হয়েছে তা আপিল বিভাগেও বহাল থাকবে তার কোনো কথা নেই। তাহলে তো আপিল বিভাগ থাকার দরকার নেই।’ উদাহরণ হিসেবে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ এই আইন কর্মকর্তা জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী  ও আব্দুল কাদের মোল্লার রায়ের কথা উল্লেখ করেন। অ্যাটর্নি জেনারেল জানান, সাঈদীকে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছিলেন, উচ্চ আদালতে তাকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। কাদের মোল্লাকে ট্রাইব্যুনাল যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছিলেন, উচ্চ আদালতে তার ফাঁসির দণ্ড হয়েছিল। এ সময় প্রধান বিচারপতি নিয়ে দুই মন্ত্রীর মন্তব্যের ব্যাপারে আদালতে লিখিত অভিযোগ করবেন কি না এমন প্রশ্নে তিনি বলেন,  ‘এ ব্যাপারে আমি কোনো মন্তব্য করব না।’ গত ২৪ ফেব্রুয়ারি মীর কাসেম আলীর আপিল মামলা শুনানিকালে প্রধান বিচারপতি বলেছিলেন, রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এবং তদন্ত সংস্থা যে গাফিলতি করেছে, এজন্য তাদের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো উচিত। প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমরা রাষ্ট্রপক্ষের মামলা পরিচালনায় খুবই মর্মাহত। মামলার এভিডেন্স দেখলে, এগুলো পড়লে আমাদের খুব কষ্ট লাগে। মামলাগুলো যখন আমরা পড়ি, তখন আমাদের গা ঘিনঘিন করে তাদের মামলা পরিচালনা দেখে। সব মামলায় এটা হয়ে আসছে।’ গত ৫ মার্চ রাজধানীতে ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটি আয়োজিত সেমিনারে প্রধান বিচারপতির এ বক্তব্যকে কেন্দ্র করে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক মীর কাসেমের মামলা থেকে প্রধান বিচারপতিকে সরে যাওয়া এবং এই আপিল মামলা পুনরায় শুনানির দাবি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*