রাঙামাটির কুদুকছড়িতে নারী সমাবেশ অনুষ্ঠিত

IMG_20160308_101644পার্বত্যবাণী ডেস্ক: পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘ ও হিল উইমেন্স ফেডারেশনের যৌথ উদ্যোগে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে রাঙামাটি সদর উপজেলার কুদুকছড়ির বড় মহাপুরুম উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নারী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (৮ মার্চ) সকাল ১০টায় হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি নিরুপা চাকমার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ) বান্দরাবন জেলার প্রধান সংগঠক ছোটন কান্তি তংচঙ্গ্যা, পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘের কেন্দ্রীয় কমিটির সংগ্রামী সভাপতি সোনালী চাকমা, ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ) খাগড়াছড়ি জেলা ইউনিটের অন্যতম সংগঠক মিঠুন চাকমা, নির্বাচিত জুম্ম প্রতিনিধি সংসদের সহ-সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক্ষ্যং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুপন চাকমা, নির্বাচিত জুম্ম প্রতিনিধি সংসদের সদস্য ও কুদুকছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সন্টু বিকাশ চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক জিকো ত্রিপুরা ও বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক বিপুল চাকমা প্রমূখ। পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘের সাধারণ সম্পাদক কাজলী ত্রিপুরা সমাবেশে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রিনা চাকমা সমাবেশ পরিচালনা করেন।

সমাবেশে নারী নেত্রী সোনালী চাকমা বলেন, আজকের এই দিনটি পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ‘নারী দিবস’ হিসেবে পালিত হচ্ছে। আমাদের এই সমাবেশ একটি ব্যতিক্রম ধর্ম্মী সমাবেশ। নারী অধিকারের পাশাপাশি জাতিগতভাবে যে রাষ্ট্রীয় দমন-পীড়ন চলছে তার বিরুদ্ধেও আমাদেরকে জীবনবাজি রেখে আান্দোলন-সংগ্রাম করতে হচ্ছে। গোটা বাংলাদেশের পরিস্থিতির চেয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামের পরিস্থিতি সম্পূর্ণ আলাদা। আমাদেরকে সুন্দরী সাজার চেয়ে অধিকারের প্রশ্নে আরো অধিকতর সচেতন হতে হবে।

ইউপিডিএফ নেতা ছোটন কান্তি তংচঙ্গ্যা বলেন, বান্দরবান জেলায় পাহাড়ি জনগোষ্ঠির সকল সম্প্রদায়ের বসবাস রয়েছে। খাগড়াছড়ি ও রাঙ্গামাটি জেলার তুলনায় বান্দরবান জেলার জাতিসত্তাগুলো শিক্ষা-দীক্ষা ও রাজনৈতিকভাবে অনেক পিছিয়ে। নারী অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন ও পাহাড়ি জাতিসত্তাগুলোর জাতীয় মুক্তি আন্দোলন এক সূত্রে গাঁথা। একটি সমাজ ও জাতি পরিপূর্ণভাবে বিকাশের জন্য আত্মনিয়ন্ত্রণ অধিকারের কোন বিকল্প নেই। তিনি বলেন, অধিকারের জন্য আমরা যদি সবাই ইস্পাত কঠিন ঐক্য গড়ে তুলতে পারি তাহলে কোন শক্তিই আমাদেরকে দাবিয়ে রাখতে পারবে না। সমাবেশ শেষে নারী অধিকারের বিভিন্ন দাবি-দাওয়া সম্বলিত প্ল্যাকার্ড বহন পূর্বক একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালী কুদুকছড়ি বাজার প্রদক্ষিণ করে আবারো বড় মহাপুরুম উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে গিয়ে শেষ হয়। (প্রেসবিজ্ঞপ্তি)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*