রবিবার আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে মারমাদের প্রধান সামাজিক উৎসব প্রবারণা পূর্ণিমা

ban-utsabনিজস্ব প্রতিবেদক: বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ধর্মীয় উৎসব ও মারমাদের প্রধান সামাজিক  প্রাণের উৎসব ওয়াগ্যোয়াই পোয়েহ্ (প্রবারণা পূর্ণিমা) উৎসব আনুষ্ঠানিকভাবে আগামী রোববার (১৬অক্টোবর) হতে শুরু হবে।   মূলত: মারমাদের পূর্ণিমা তিথি থেকে কৃষ্ণপক্ষের চতুর্থী পর্যন্ত মোট ৪দিন ব্যাপী এই উৎসবটি হয়ে থাকে। বৌদ্ধদের আষাঢ়ী পূর্ণিমার পর দিন থেকে তিন মাস ব্যাপী বর্ষাব্রত পালন শুরু হয় এবং প্রবারণা পূর্ণিমার (ওয়াগ্যোয়াই লাব্রেঃ) দিন বর্ষাব্রত শেষ হয় । ওয়াগ্যোয়াই পূর্ণিমার দিনেই রাজকুমার সিদ্ধার্থের মাতৃগর্ভে প্রতিসন্ধি গ্রহণ,গৃহত্যাগ ও ধর্মচক্র প্রর্বতন সংঘটিত হয়েছিল বলেই প্রত্যেক বৌদ্ধ ধর্মালম্বীদের কাছে এদিনটি বিশেষ স্মরণীয় হয়ে আছে। বান্দরবানের মারমা সম্প্রদায়ের কিশোর-কিশোরী,যুবক-যুবতীরা পিঠা তৈরীসহ নানা আচার-অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পাহাড়ে গ্রামে ও শহর জুড়ে ফানুস উড়িয়ে শুরু হয় প্রবারণা পূর্ণিমা অনুষ্ঠান (ওয়াগ্যোয়াই পোয়েহ্)। এই সম্প্রদায়দের টানা তিনমাসজুড়ে বর্ষাবাস চলা উৎসবের উচ্ছ্বাস এখনও পাহাড়ে ও গ্রামে গ্রামে মাতিয়ে রেখেছে বৌদ্ধধর্মালম্বীরা । উৎসব উপলক্ষে নেয়া বিভিন্ন কর্মসূচি চলমান অবস্থায় রয়েছে।
বান্দরবানে ওয়াগ্যোয়াই পোয়েহ্ উপলক্ষে ৪দিনব্যাপী কর্মসূচি উদযাপিত হচ্ছে বলে জানান, উৎসব উদ্যাপন কমিটি। তবে আগামী রবিবার আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে তিন পার্বত্য  মারমাদের প্রধান সামাজিক উৎসব প্রবারণা পূর্ণিমা(ওয়াগ্যোয়াই পোয়েহ্)।
ওয়াগ্যোয়াই পোয়েহ্ অর্থ হচ্ছে শীল পালনকারীরা তিনমাস বর্ষাবাস পালন করে প্রবারণা পূর্ণিমার দিনে বিহার থেকে সকল বিবাদ ভুলে গিয়ে একে অন্যকে সম্ভাষণ জানায় এবং মনের সমস্ত সংকীর্ণতা পরিহার করে অহিংসা মন্ত্রে হয়ে মহামিলনের নিজ সংসারে ফিরে আসা। এ উৎসবে মেতে ওঠে বিশেষ করে তিন পার্বত্য জেলার মারমা ও রাখাইন তরুণ-তরুণীরা,কিশোর-কিশোরী,যুবক-যুবতী,দায়ক-দায়িকা,উপাসক-উপাসিকারা। এমনকি অংশ নেয় সব বয়সের শিশু থেকে নারী-পুরুষও। উৎসব শেষ হবে আগামী ১৭ অক্টোবর সোমবার। বান্দরবানের ৭টি উপজেলাগুলোতে ছোট বড় গ্রামে গ্রামে এসব ওয়াগ্যোয়াই পোয়েহ্ উৎসবে জমে উঠবে প্রাণের মেলা প্রবারণা পূর্ণিমা(ওয়াগ্যোয়াই পোয়েহ্)।
এদিকে বান্দরবান জেলা উৎসব উদ্যাপন কমিটি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জানান, প্রতি বছরের চেয়ে এবার ভিন্নভাবে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা ও আনন্দঘন পরিবেশে বান্দরবানে উদযাপিত হবে প্রবারণা পূর্ণিমা উৎসব (ওয়াগ্যোয়াই পোয়েহ্) ।
১৫অক্টোবর বান্দরবান উৎসব উদযাপন কমিটির আয়োজনে মারমা শিল্পী গোষ্ঠী পরিবেশনায় সন্ধ্যা ৭ঘটিকায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকছেন পার্বত্য চট্রগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়, মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, বীর বাহাদুর উশৈসিং এম পি ।
১৬অক্টোবর রাজগুরু বৌদ্ধ বিহার ও উজানি পাড়া বৌদ্ধ বিহারের আসাং¤্রাই (বৌদ্ধ মূর্তি) শ্রর্দ্ধাঘ উদ্দেশ্যে রথ যাত্রা উদ্বোধন। সন্ধ্যা ৬টায় ঐতিহ্যবাহী রাজার মাঠ থেকে ফানুস উৎসর্গ। অন্যদিকে শহরের বিভিন্ন স্থানে উৎসব উদ্যাপন পরিষদ কমিটির সহযোগিতায় সারারাত পিঠা তৈরির অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।
১৭ অক্টোবর ধর্মীয় আলোচনা, আকাশে ফানুস উড়ানো,শহরে রথযাত্রার মাধ্যমে নদীতে রথ উৎসর্গ ও বুদ্ধ পূজা আচার অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শেষ হবে প্রবারণা পূর্ণিমা (ওয়াগ্যোয়াই পোয়েহ্) উৎসব।
এছাড়া ১৬অক্টোবর সকাল থেকে বৌদ্ধ ধর্মালম্বী নর-নারীরা বিহারে গিয়ে ছোয়াইং(খাদ্য দান),অর্থদান ও পঞ্চশীল গ্রহণ করেন। দায়ক-দায়িকাগণ এবং উপাসক-উপাসিকাদের অষ্টশীল গ্রহণের মধ্য দিয়ে শুভসূচনা হবে ওয়াগ্যোয়াই পোয়েহ্ উৎসব। প্রতিবছরের ন্যায় এবারও বান্দরবান শহরের খ্যংওয়াক্যাং, খ্যংফিয়াক্যাং,স্বর্ণ মন্দির, রাম জাদি,করুণাপুর বৌদ্ধ বিহারসহ অন্যান্য বৌদ্ধ বিহারগুলোতে প্রার্থনা,ছোয়াইংও অর্থ দানের মাধ্যমে উৎসবটি পালন করা হবে ।
উৎসব উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক কোকোচিং মারমা জানান, প্রতিটি অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হবে পার্বত্য চট্রগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়, মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি’র মাধ্যমে।
অনুষ্ঠানটি উপভোগ করার জন্য দেশী-বিদেশী পর্যটকের ভিড় জমেছে। বান্দরবান জেলা শহরের হোটেল-মোটেলগুলোতে তিল ধারণের ঠাঁই নাই বলে জানান হোটেল মালিকরা । উৎসব আয়োজক কমিটি জানায়, উৎসবকে ঘিরে আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে প্রশাসন ও পুলিশের বিশেষ ভূমিকা রাখা হবে এবার।
বান্দরবান জেলা পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বলেন, প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে পুরো বান্দরবান জেলা নিরাপত্তার চাদরে ঢাকানো রয়েছে। উৎসবকে ঘিরে যাতে কোন রকম নাশকতা ও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটাতে না পারে। উৎসবে আগন্তুক পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতেও পুলিশের বিশেষ টিম প্রস্তুত রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*