বান্দরবানে ১৩ মারমা নারী পাচারের দায়ে বৌদ্ধ ভিক্ষু আটক

Ban bhikkuনিজস্ব প্রতিবেদক: বান্দরবানের রোয়াংছড়ি থেকে ১৩ মারমা নারীকে মায়ানমারে পাচারের অভিযোগে উসিরি ভিক্ষু (২৩) নামের এক বৌদ্ধ ভিক্ষুকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার সন্ধ্যায়   রাঙ্গামাটির কাপ্তাই উপজেলার মিতিঙ্গাছড়ি বৌদ্ধ মন্দির থেকে তাকে আটক করা হয়। তার বিরুদ্ধে রোয়াংছড়ি থানায় মানব পাচার আইনে মামলা দায়ের করা হযেছে। বান্দরবান সদর থানায় শুক্রবার রাতে অভিযুক্ত ঐ বৌদ্ধ ভিক্ষুকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা।

বান্দরবান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: রফিক উল্লাহ্ ও রোয়াংছড়ি থানার এসআই গোলাম মোস্তফা জানান, রোয়াংছড়ির তারাছাসহ বেশ কয়েকটি এলাকা থেকে ১৩ জন মারমা যুবতী মেয়েকে বিনা পয়সায় পড়ালেখা করানোর প্রলোভন দেখিয়ে কাপ্তাই এর মিতিঙ্গাছড়ি বৌদ্ধ মন্দিরে নিয়ে যায় বৌদ্ধ ভিক্ষু উসিরি ভান্তে। শুক্রবার সকালে রোয়াংছড়ি থানায় বাদী হয়ে একটি মানবপাচার আইনে মামলা দায়ের করে নিখোঁজ মেয়েদের অভিভাবকরা। পরে সন্ধ্যায় কাপ্তাই পুলিশের সহায়তায় বান্দরবান পুলিশ মিতিঙ্গাছড়ি বৌদ্ধ মন্দির থেকে উসিরি ভান্তেকে আটক করে। আটককৃত বৌদ্ধ ভিক্ষু উসিরি ভান্তে জানান মায়ানমারের মংন্ডু শহরতলীর কাছে নেজাদো মন্দিরে রোয়াংছড়ির ১১ জন মেয়েকে ধর্মীয় একটি অনুষ্ঠানে পাঠানো হয়েছে। কক্সবাজারের উখিয়ার হুয়াইক্ষ্যং দিয়ে ওপারে মেয়েদের পাঠান। তবে তিনি পাচার করেননি বলে জানিয়েছেন।

রোয়াংছড়ির সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান হ্লাথুরী মারমা জানান নিখোঁজ মেয়েদের অভিভাবকরা নিরূপায় হয়ে মানবপাচারের মামলা করেছে। একই সাথে ১৩ জন মেয়ে নিখোঁজ হওয়া রহস্যজনক বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*