বান্দরবানে খাল থেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন

Bandarban-বান্দরবান সংবাদদাতা: বান্দরবান সদর উপজেলার হানসামা পাড়া খাল থেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের মহোৎসবে মেতেছে কথিপয় অসাধু ব্যবসায়ীরা।  বালু উত্তোলনের কারনে আগামী বর্ষা মৌসুমে হানসামা পাড়া ও ক্রাক্ষ্যং পাড়া নামে দুটি উপজাতী পাড়া খাল গর্ভে বিলীন হওয়ার আশংকা প্রকাশ করেছে স্থানীয়রা। জানা যায়, বান্দরবান সদর উপজেলার হানসামা পাড়া ও ক্রাক্ষ্যং পাড়ার পাশ ঘেসে বয়ে যাওয়া খাল থেকে স্থানীয় মংক্যচিং মার্মা প্রকাশ ধুমকী ও বাস ষ্টেশন এলাকার ফরিদ ড্রাইভার নামে দুই অসাধু ব্যবসায়ী বেশ কিছু দিন ধরে দুটি ট্রাক যোগে দিনে ও রাতে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করে বিভিন্ন জায়গায় পাচার করছে। বালু উত্তোলনের ফলে খালের পাড় বিভিন্ন অংশে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। এতে হানসামা পাড়া ও ক্রাক্ষ্যং পাড়া নামে এই দুটি উপজাতীয় পাড়ার বিভিন্ন অংশ দেবে গিয়ে বেশ কয়েকটি বসত ঘরে খাল গর্ভে চলে যাওয়ার পথে। এছাড়াও বালু উত্তোলনের কারনে খালে গভীর গর্ত সৃষ্টি হয়ে গত সপ্তাহে হানসামা খালের ভ্যালী ব্রীজ বিধ্বস্ত হয়ে বান্দরবানের সাথে রোয়াংছড়ির সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। হানসামা ক্রাক্ষ্যং পাড়ার কারর্বারী(পাড়া প্রধান) চাইংগ্যা প্রু মার্মা সহ পাড়ার লোকজন জানান, মংক্যচিং মার্মা প্রকাশ ধুমকী ও ফরিদ ড্রাইভার নামে দুই ব্যবসায়ী অবৈধ ভাবে হানসামা খাল থেকে বালু উত্তোলন করে বিভিন্ন জায়গায় পাচার করে বিপুল অর্থের মালিক বরে যাচ্ছে। খাল থেকে বালু উত্তোলনের কারনে খাল গভীর হয়ে গিয়ে খালের পাড় বিভিন্ন অংশ ভাঙ্গন ও দেবে যায়।  ইতি মধ্যে পাড়ার কয়েকটি বসত ঘর খালের গর্ভে চলে যাওয়ার অবস্থা হয়েছে।  তারা আরো জানান,গত সপ্তাহে ব্রীজের গোড়ার মাটি সরে গিয়ে খানসামা পাড়া এলাকার ভ্যালী ব্রীজটি ভেঙ্গে গেছে। সারা বছর ধরে কয়েকটি ঝিরির পানি হানসামা খাল দিয়ে প্রবাহিত হয়। খানসামা খালটি বিপদ জনক এবং খর¯্রােতা। আগামী বর্ষা মৌসুমে হানসামা পাড়া ও ক্রাক্ষ্যংপাড়ার প্রায় অর্ধ শতাধিক বসত ঘর খাল গর্ভে বিলীন হওয়ার আশংকা প্রকাশ করছেন তারা। এব্যপারে বালু উত্তোলনকারী মংক্যচিং মার্মা প্রকাশ ধুমকী অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের ঘটনা স্বীকার করে বলেন, দীর্ঘ দিন ধরে বালু উত্তোলন করলেও আমার কাছে বৈধ কোন অনুমতি পত্র নেই এবং প্রশাসনের পক্ষ থেকেও নিষেধ করা হয়নি। তবে খাল থেকে বালু উত্তোলনের ফলে ব্

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*