বর্ণাঢ্য আয়োজনে খাগড়াছড়িতে ২১তম জাবারাং ডে অনুষ্ঠিত

DSCN1626নিজস্ব প্রতিবেদক: কর্মী সম্মেলন, বার্ষিক সাধারণ সভা,  ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে  বর্ণাঢ্য আয়োজনে খাগড়াছড়ির স্বনামধন্য এনজিও সংস্থা জাবারাং এর ২১তম বর্ষপূর্তি পালিত হয়েছে।
শুক্রবার দুপুরে খাগড়াপুরস্থ জাবারাং টিআরটিসি-তে ২১তম বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তব্য রাখেন সমাজসেবা অধিদফতর, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার উপ-পরিচালক অমল বিকাশ চাকমা।  এসময় তিনি জেলার সার্বিক আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অবদান রাখার জন্য জাবারাংকে অভিনন্দন জানিয়ে কর্মীদের আরো অধিক মেধা, নিষ্ঠা ও সততার সাথে মাঠে ভূমিকা রাখার আহবান জানান।
সংস্থার কর্মসূচি সমন্বয়কারি বিনোদন ত্রিপুরার পরিচালনায় চেয়ারপার্সন চন্দ্র কিশোর ত্রিপুরার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সহ-সভাপতি নারী নেত্রী শেফালিকা ত্রিপুরা ও উপদেষ্টা অবসরপ্রাপ্ত সহকারি অধ্যাপক মধু মঙ্গল চাকমা।
এর আগে সকাল সাড়ে ৯টায় জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে সূচিত অধিবেশনে সংস্থার নির্বাহী পরিচালক মথুরা বিকাশ ত্রিপুরার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয় কর্মী সম্মেলন। সম্মেলনে কর্মীদের সারা বছরের কার্যক্রমের মূল্যায়ন, আত্মসমালোচনা ও প্রতিষ্ঠানের ভবিষ্যত পরিকল্পনা গ্রহণে বিভিন্ন সুপারিশমালা তুলে ধরা হয়। সুপারিশমালায় ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জনে জাবারাং-এর নতুন কর্মকৌশল নির্ধারণের উপর গুরুত্বারোপ করা হয়।
DSCN1549এদিকে, দুপুরে জাবারাং-এর সাধারণ সদস্য, কার্যকরী কমিটির সদস্য, কর্মী ও শুভাকাঙ্খীদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত বার্ষিক সাধারণ সভায় মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে বার্ষিক প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক মথুরা বিকাশ ত্রিপুরা। বার্ষিক প্রতিবেদনে সংস্থার বিগত বছরে পরিচালিত কার্যক্রমের ফলাফল, প্রভাব ও কাজের স্বীকৃতি তুলে ধরা হয়। এসময় জাবারাং এর পক্ষ হতে খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার ভাইবোনছড়া ইউনিয়নে সেরা উন্নয়নকর্মী হিসেবে স্বীকৃতিপ্রাপ্ত সংস্থার কর্মী গোপীনাথ ত্রিপুরাকে তার অর্জনস্বরূপ ঐতিহ্যবাহী উত্তরীয় পরিয়ে অভিনন্দন জ্ঞাপন করা হয়।  পরে বিকেলে কর্মীদের অংশগ্রহণে বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয় এবং বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।
পরিবর্তণে জাবারাং : ১৯৯৫ সালের ২৮ জানুয়ারি জাবারাং কল্যাণ সমিতি হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। এ বছর সমাজ সেবা অধিদপ্তরের অনুমোদনের প্রেক্ষিতে সংস্থাটির নাম কেবল ‘জাবারাং’ নামে পরিচিত হবে বলে সভায় নির্বাহী পরিচালক জানান। প্রতিষ্ঠার পর থেকে সংস্থাটি বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি দাতা সংস্থার সহযোগিতা নিয়ে প্রত্যন্ত এলাকার সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে বিশেষ করে শিক্ষার মান উন্নয়নে বিশেষ অবদান রেখে আসছে। আলোচনা সভা শেষে প্রধান অতিথি সংস্থার পরিবর্তিত নামের সনদ জাবারাং চেয়ারপার্সন চন্দ্র কিশোর ত্রিপুরার হাতে হস্তান্তর করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*