বন উজাড়ে ধ্বংস হচ্ছে পানির উৎস

ranga Bonনিজস্ব প্রতিবেদক: বন উজাড়, পাথর উত্তোলন, অপরিকল্পিত বসত নির্মাণ, মাটি কাটার কারণে পাহাড়ের পানির উৎসগুলো ধংস হচ্ছে। সচেতনতার অভাবে প্রত্যান্ত অঞ্চলের মানুষ বন উজাড় করার কারণে দিন দিন পানির উৎসগুলোও হারিয়ে যাচ্ছে। এসব প্রতিকারের ব্যবস্থা করা না হলে ভবিষ্যতে পাহাড়ে পানির তীব্র সংকট সৃষ্টি হবে।

মঙ্গলবার সকালে রাঙামাটি জেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে রাঙামাটি জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগ, বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা এনজিও ফোরাম এবং প্রগ্রেসিভের যৌথ আয়োজনে বিশ্ব পানি দিবস-২০১৬ উপলক্ষে জল জীবিকার স্বীকৃতি স্থানীয় প্রেক্ষিত বিষয়ক সিম্পোজিয়ামে এসব কথা বলেন বক্তারা।
রাঙামাটি জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের সহকারী প্রকৌশলী অচিউর রহমানের সভাপতিত্বে সিম্পোজিয়ামে প্রধান অতিথি হিসেবে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য রেমলিয়ানা পাংখোয়া ও বিশেষ অতিথি হিসেবে সাংবাদিক হরি কিশোর চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সমন্বিত সমাজ উন্নয়ন প্রকল্প (আইসিডিপি)’র উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা মঞ্জু মানস ত্রিপুরা বক্তব্য রাখেন। স্বাগত বক্তব্য দেন প্রগ্রেসিভ এর নির্বাহী পরিচালক সুচরিতা চাকমা। জল ও জীবিকা নিয়ে প্রবন্ধ পাঠ করেন স্থানীয় বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা হিলেহিলির উপদেষ্টা তনয় দেওয়ান। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন অ্যাড. কক্সী তালুকদার।
সিম্পোজিয়ামে বক্তারা বলেন, দেশের সমতল অঞ্চলের তুলনায় পার্বত্য অঞ্চলের ভৌগলিক অবস্থা ভিন্ন। এখানে যেখানে সেখানে রিংওয়েল বা টিউবওয়েল বসানো সম্ভব হয় না। যার ফলে পাহাড়ের ছড়া, ঝিড়ি, ঝর্ণার পানির উপরই দূর্গম এলাকার মানুষদের ভরসা করে চলতে হয়। এসব ছড়া, ঝিড়ি, ঝর্ণার পানির একমাত্র উৎস হচ্ছে বন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*