পিতা-পুত্র হত্যা: প্রকৃত দোষীদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবী জানিয়েছে খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামীলীগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: পারিবারিক বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত জেলা সদরের থলিপাড়ায় পিতা চিরঞ্জীব ত্রিপুরা ও তার পুত্র কর্ণ ত্রিপুরার হত্যাকান্ডের রহস্য উদ্ঘাটন ও প্রকৃত দোষীদের গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্ত শাস্তির দাবী জানিয়েছেন খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামীলীগ।
শুক্রবার সন্ধ্যায় জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরী স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে জানান, এটি একটি নৃশংস হৃদয়বিদারক হত্যাকান্ড। এ ঘটনায় খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামীলীগ পরিবার মর্মাহত। ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত এ নৃশংস হত্যাকান্ডের বিষয়টি পারিবারিক অভিযোগ, স্থানীয় সূত্র ও খাগড়াছড়ি পুলিশ ও প্রশাসনের বরাত দিয়ে জানা গেছে,  ঘটনাটির পারিবারিক দ্বন্ধের কারনে সংঘটিত হয়েছে। অথচ, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার শান্তিপূর্ণ পরিবেশকে অশান্ত করতে একটি মহল প্রকৃত ঘটনাকে ধামাচাপা দিতে অপরাজনীতির মাধ্যমে রাজনৈতিক ফায়দা লুটার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।
বিবৃতিতে তিনি আরো বলেন, নিরীহ গ্রামবাসী পিতা-পুত্র হত্যাকান্ডের ঘটনায় প্রকৃত রহস্য উদঘাটন, খুনীদের গ্রেফতার পূর্বক শাস্তি প্রদান নিশ্চিত করনে প্রশাসনকে সকল প্রকার সহযোগিতা প্রদানে অনড় অবস্থানে রয়েছে খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামীলীগ।
এ নিয়ে কোন প্রকার অপরাজনীতি, দুষ্টচক্রের পায়তা  রা রোধকল্পে খাগড়াছড়ি জেলার সর্বস্তরের জনসাধারন, জেলা আওয়ামীলীগের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মী এবং স্থানীয় প্রশাসনকে সজাগ থাকার আহবান জানিয়েছেন খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামীলীগ।
প্রসঙ্গত: বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে খাগড়াছড়ির দুর্গম নুনছড়ির থলিপাড়া এলাকায় সামাজিক বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় চিরজিৎ ত্রিপুরা (৫৫) নিহত হন এবং আশংকাজনক অবস্থায় খাগড়াছড়ি হাসপাতালে আনার পর তার পুত্র কর্ণ ত্রিপুরা (৩০) নিহত হন। আহতরা হলেন, চিরঞ্জিত ত্রিপুরার স্ত্রী ভবেলক্ষী ত্রিপুরা (৪৫) ও পুত্রবধূ বিজলী ত্রিপুরা (২৮)।  পরিবারের পক্ষ হতে অভিযোগ করা হয়েছে, ইউপি সদস্য কালিবন্ধু ত্রিপুরার নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী এই হামলা চালিয়েছে। খবর পেয়ে সেনাবাহিনী ও পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহত ও আহতদের উদ্বার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*