পাহাড়ে বৈসাবিতে চমকপ্রদ র‌্যালি যেন জনতার ঢল

আবুল কাসেম: ‘পাহাড়ের বৈসাবিতে চমকপ্রদ র‌্যালি যেন জনতার ঢল’। প্রতিবছরের ন্যায় এবছরও ১১এপ্রিল হতে খাগড়াছড়িসহ তিন পাহাড়ে বৈসাবির বর্ণিল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের বৈসু, মারমা সম্প্রদায়ের সাংগ্রাই ও চাকমা সম্প্রদায়ের বিজু উৎসবের আদ্যক্ষরে মিলিত বৈসাবির আনন্দ উৎসবে মাতোয়ারা তিনপাহাড়ের মানুষ । স্ব-স্ব কৃষ্টি সংস্কৃতিতে ও ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এ উৎসব পালিত হচ্ছে। আর এ উৎসবকে সার্বজনীন উৎসবে পরিনত করেছে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ। এমনটাই ভাষ্য, জেলার গুণীজন ও বিশিষ্টজনদের।

পাহাড়ের বৈসাবি ও বাংলা নববর্ষকে বরণ করতে এবছরও বর্ণিল আনুষ্ঠানিকতা, রঙে-বেরঙে খাগড়াছড়ি জেলাকে সাজানো হলেও বেশ্ আলোচনায় স্থান করে নিয়েছে বর্ণাঢ্য র‌্যালি। র‌্যালিতে অংশ নেয় পাহাড়ি-বাঙালিসহ নানা পেশাজীবির মানুষসহ নানা সামাজিক সংগঠন। যা ১১ এপ্রিল সকালেই শান্তির পায়রা উঁড়িয়ে পরিষদ প্রাঙ্গন হতে শুরু হয় টাউনহল চত্বরে গিয়ে ইতিটানে। তবুও র‌্যালির আলোচনা হয়নি। সর্ব মহলে পাড়ায় পাড়ায় র‌্যালির আনুষ্ঠানিকতা নিয়ে চলছে নানা প্রশংসার ফুলঝুঁড়ি।

র‌্যালিতে অংশ নেয়া লেসমি চাকমা এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, আমি বৈসাবিতে পাহাড়ে ছুটে আসি নাড়ীর টানে। প্রতিবছর র‌্যালিতে অংশ নিলেও এবছরের র‌্যালটি ছিল ভিন্নমাত্রার। সবাই আনন্দে-উল্লাসে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মাধ্যমে র‌্যালিটি শেষ হলেও র‌্যালির শেষাংশ দেখার সুযোগ হয়নি। রেজাউল করিম নামে এক ছাত্রলীগ নেতা বলেন, র‌্যালির প্রথমাংশ গিয়ে টাউনহলে গিয়ে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের পেস্টিবাল প্রোগ্রাম শেষ হলেও র‌্যালি শেষাংষ ছিল নারিকেল বাগানে, এক কথায় অনুষ্ঠান শেষ হলেও র‌্যালি শেষ হয়নি। এমন র‌্যালি খাগড়াছড়ির ইতিহাসে দৃষ্টান্ত করে রাখবে শান্তিকামী উৎসবকারীদের হৃদয়ে।

এদিকে, একাধিকজন প্রতিক্রিয়ায় বলেন, বৈসাবির র‌্যালিটি যেন জনতার ঢলে পরিণত হয়েছে, যা দেখি নতুন লাগে। অপরদিকে, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ও খাগড়াছড়িতে বৈসাবির র‌্যালির উদ্বোধক এবং গুণীজন সংবর্ধনার প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য সচিব মো. নুরুল আমিনও বৈসাবির র‌্যালির বিষয়ে বলেন, ‘আমি পাহাড়ের সম্প্রীতির কথা শুনেছি, সংস্কৃতির কথা শুনেছি, আজ নিজের চোখেই দেখেছি, বর্ণাঢ্য র‌্যালিতে অগণিত বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষের বিশাল র‌্যালি আমাকে মুগ্ধ করেছে’।

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের আয়োজনের বৈসাবি র‌্যালিতে জনতার ঢল নামার কারন কী, এমন প্রশ্নে র‌্যালি উপ-কমিটির আহবায়ক, পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য পার্থ ত্রিপুরা জুয়েল বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ও তাঁরই শ্লোগান ধর্ম যার যার, উৎসব সবার এই উক্তিটি মানুষ হৃদয়ে ধারন ও লালন করেছে বলে বর্ণাঢ্য র‌্যালি জনতার ঢলে পরিণত হয়েছে। একজন আহবায়ক হিসেবে তিনি র‌্যালি চমকপ্রদ ও শান্তিপূর্ণ এবং জনতার ঢলে রূপ নেয়ায়  অংশগ্রহণকারী সকল প্রশাসনিক, রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও পেশাজীবি সকল গণমাধ্যমকর্মীর প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*