পাহাড়ের বৈসাবি প্রধানমন্ত্রীর অমরবাণীর প্রতিফলন: পাজেপ চেয়ারম্যান কংজরী

নিজস্ব প্রতিবেদক: পাহাড়ের প্রাণের উৎসব বৈসাবিকে পাহাড়ী-বাঙালির সম্প্রীতির মেলবন্ধনের প্রতীক ও প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার অমরবাণীর প্রতিফলন হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী। এর আগে তিনি খাগড়াছড়ি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি ইনস্টিটিউটের আয়োজনে ৩দিন ব্যাপী বৈসাবি মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পার্বত্যবাসীকে বৈসাবি শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

পাজেপ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী গতকাল সন্ধ্যায় বৈসাবির প্রস্তুতি নিয়ে গণমাধ্যমকে দেয়া এক বক্তব্যে বলেন, বৈসাবি হলো পাহাড়ের প্রাণের উৎসব। মূলত: ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের বৈসু, মারমাদের সাংগ্রাই ও চাকমাদের বিজু এই তিন সম্প্রদায়ের প্রধান সামাজিক উৎসবগুলোর আধিক্ষ্যারে বৈসাবি হলেও এই উৎসবে একাকার হয়ে যায় পাহাড়ের পাহাড়ী-বাঙালি। একদিকে নববর্ষ ও অন্যদিকে বৈসাবির রঙে রাঙিয়ে পাহাড়ে এই আনন্দ উৎসবকে আরো বেশি সমুজ্জিত করতে সরকারি উদ্যোগে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ ব্যাপক প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে।

এসময় তিনি বলেন, ‘ধর্ম যার যার, উৎসব সবার’ বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই বাণীটি যেন এক স্বর্ণাক্ষরিত অমরবাণী। বৈসাবি এলেই আমরা এই অমরবাণীর প্রতিফলন দেখে থাকি। প্রধানমন্ত্রীর মহৎ এই বাণীকে পার্বত্যবাসী হৃদয়ে লালন করে এবছরও শান্তিপূর্ণ ভাবে পাহাড়ে বৈসাবি উদযাপিত হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এদিকে, বৈসাবিকে ঘিরে ব্যাপক বর্ণিল কর্মসূচি পালনে প্রস্তুত নিয়েছে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ। মূলত: আগামী ১২এপ্রিল পাহাড়ের বিজুর দিন শুরু হলেও সরকারি ভাবে ১১এপ্রিল সকাল ৯টায় পার্বত্য জেলা পরিষদ প্রাঙ্গন হতে শহরে বের হবে বৈসাবির শোভাযাত্রা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*