পানছড়িতে জয় ছিনিয়ে নিতে মরিয়া ইউপিডিএফ: উল্টাছড়িতে বিএনপি ভোট বর্জন

IMG_6250নিজস্ব প্রতিবেদক: আগামী ২৩ এপ্রিল ৩য় ধাপে খাগড়াছড়ি জেলার সীমান্তবর্তী উপজেলা পানছড়ির ৫টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। দলীয় প্রতীক বিহীন বিগত ইউপি নির্বাচনে পাহাড়ের আঞ্চলিক সংগঠন ইউপিডিএফ সমর্থিত সকল প্রার্থী বিজয়ী হয়েছিল। পানছড়ির নিবাচর্নী এলাকার সচেতন ভোটারদেরমতে, এ১ম বারের ন্যায় দলীয় প্রতীকে নির্বাচনেও এ সংগঠনটি জয়ের ধারা অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে জয় ছিনিয়ে নিতে মরিয়া হয়ে ওঠেছে। এ উপজেলাটি ইউপিডিএফ অধ্যুষিত উপজেলা হওয়ায় আওয়ামীলীগ, বিএনপির প্রার্থী থাকলেও পাহাড়ের অপর সংগঠন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (এমএন লারমা) এ ইউনিয়নে কোনো প্রার্থী দেয়নি।  এর আগে গত ১৮ এপ্রিল প্রচারনা চলাকালীন সময়ে ৩নং পানছড়ি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী আফজাল মিয়া অভিযোগ নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছিলেন। তিনি ওই ইউনিয়নে সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে সেনা মোতায়েনের দাবী তোলেন। তবে সকল অভিযোগ মিথ্যা ভিত্তিহীন বলে দাবী করেছেন পানছড়ি উপজেলা আ’লীগের সভাপতি মো. বাহার মিয়া ও সম্পাদক জয়নাথ দেব। আবার অন্যপ্রান্তে গতকাল ২০এপ্রিল (বুধবার) দুপুরে আওয়ামীলীগ, আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. আবু তাহের ও আঞ্চলিক সংগঠন গুলোর ত্রিমূখী চাপে   ৫নং উল্টাছড়ি ইউপির নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন বিএনপি প্রার্থী রিপন ত্রিপুরা। জেলা বিএনপি’র আয়োজনে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রার্থীর উপস্থিতিতে জেলা বিএনপি’র নেতৃবৃন্দ উল্টাছড়ি ইউনিয়নে নির্বাচন বর্জন করেন। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক একাধিক প্রার্থীরা জানান, ইউপিডিএফ’র প্রার্থী ও সমর্থকদের বিরুদ্ধে প্রাণভয়ে কেহ মুখ খুলছে না। তাদের আশংকা, দুর্গম এলাকা নিরীহ পাহাড়ীদের জিম্মি করে তারা এবারো ভোট ছিনিয়ে নিবে। কেন্দ্র দখল বা কেন্দ্রে গিয়ে প্রভাব বিস্তার না করলেও নির্বাচনের পূর্ব মুহুর্তে তারা গ্রামবাসীদের সমর্থিত প্রার্থীর প্রতীকে সীল মারার ভয়ভীতি প্রদর্শন করে আসছে। যা নিয়ে নিরীহ পাহাড়ীও এক প্রকার তাদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে। আশংকায় থাকা এসব প্রার্থীদের আশাবাদ, জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসনের আশানুরূপ জোরালো ভূমিকা থাকলেও এ উপজেলায় যোগ্য প্রার্থীরাই নির্বাচিত হবেন। অন্যথায় ইউপিডিএফ’র কাছে সকল দলের প্রার্থীরা যেন অসহায় !

উপজেলা কৃষি অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা আলা উদ্দিন শেখ জানান, পানছড়ি উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ, জাতীয়পাটি, বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ ২৬ জন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন। তন্মধ্যে ১নং লোগাং ইউনিয়নে- ০৫জন, ২নং চেংগী ইউনিয়নে-০৭জন, ৩নং পানছড়ি ইউনিয়নে-০৫জন, ৪নং লতিবান ইউনিয়নে-৪জন ও ৫নং উল্টাছড়ি ইউনিয়নে ০৫জন নির্বাচনী লড়াইয়ে রয়েছেন। এ উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা-৪৪ হাজার ৭১১ জন, পুরুষ-২২ হাজার ৮৭৪ জন, আর মহিলা ভোটার ২১ হাজার ৮৩৭।

এদিকে, ৫টি ইউনিয়নে সংরক্ষিত ওয়ার্ডে নারী সদস্য-৫০জন, সাধারন ওয়ার্ড প্রার্থী-১৪০জন লড়ছেন। এর আগে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় সংরক্ষিত ওয়ার্ডে নির্বাচিত-১জন ও সাধারন ওয়ার্ডে ৩জন নির্বাচিত হয়েছেন। চেয়ারম্যান পদে-চেংগী ইউপিতে-৭জন, লতিবান ইউপি-৪জন, লোগাং ইউপি-৫জন, পানছড়ি ইউপি-৫জন ও উল্টাছড়ি ইউপি-৫জন। তন্মধ্যে-আওয়ামীলীগ প্রার্থী-৫জন, বিএনপি-২জন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ১৯জন। ৫টি ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা- ৪৬২৩৯জন, পুরুষ-২৩৫৯৩, মহিলা-২২৬৪৬। মোট ভোট কক্ষ-১৩৪।

১নম্বর লোগাং ইউপিতে মোট ভোটার ৮৭৯৫জন, পুরুষ-৪৩৯৮জন, মহিলা-৪৩৯৭ জন,  ভোট কক্ষ-২৫টি, এ ইউনিয়নে ৩টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে লড়ছেন-১০প্রার্থী ও ৯টি সাধারন ওয়ার্ডের মধ্যে ২ ও ৬নং ওয়ার্ডের হিসাব ব্যতিরেকে প্রার্থী রয়েছেন-২৯জন।

২নম্বর চেংগী ইউপিতে মোট ভোটার-৬০১৯, পুরুষ-৩০৩৮জন, মহিলা-২৯৮১জন, ভোট কক্ষ-২০টি। তিনটি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে লড়ছেন ১১জন ও সাধারন ৯টি ওয়ার্ডে ২৭জন প্রার্থী রয়েছেন।

৩নম্বর পানছড়ি ইউপিতে মোট ভোটার-১৬৭০২জন, পুরুষ-৮৮৭৩জন, ৭৮২৯জন, ভোট কক্ষ-৪৩টি।তিনটি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে লড়ছেন ১২জন ও সাধারন ৯টি ওয়ার্ডে লড়ছেন ২৬জন প্রার্থী।

৪নম্বর লতিবান ইউপিতে মোট ভোটার-৬৪৬৫জন, পুরুষ-৩২৮৮জন, মহিলা-৩১৭৭জন, ভোট কক্ষ-২১টি। সংরক্ষিত ওয়ার্ডে লড়ছেন ৬জন ও সাধারন ৯টি ওয়ার্ডে ২৬জন। উল্লেখ্য যে, ৩নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ও ৭নং সাধারন ওয়ার্ডে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হয়েছেন-২জন।

৫নম্বর উল্টাছড়ি ইউপিতে মোট ভোটার-৮২৫৮জন, পুরুষ-৩৯৯৬জন, মহিলা-৪২৬২জন, ভোট কক্ষ-২৫টি। তিনটি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে লড়ছেন ১১জন ও সাধারন ৯টি ওয়ার্ডে ২৮জন প্রার্থী।

চেয়ারম্যান পদে আ’লীগ প্রার্থীরা হলেন- ১নং লোগাং ইউনিয়নে-পানছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মিলন সাহা । ২ নম্বর চেংগী ইউনিয়নে পানছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সাধনচন্দ্র চাকমা, ৩ নম্বর পানছড়ি ইউনিয়নে পানছড়ি উপজেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক নাজির মাহমুদ, ৪ নম্বর লতিবান ইউনিয়নে পানছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক কিরণ ত্রিপুরা, ৫ নম্বর উল্টাছড়ি ইউনিয়নে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আহির উদ্দীন।

বিএনপি প্রার্থীরা হলেন- ৪নম্বর লতিবান ইউনিয়নের অক্ষয় ত্রিপুরা ও ৫নং উল্টাছড়ি ইউনিয়নে রিপন ত্রিপুরা।

স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হলেন-১নম্বর লোগাং ইউপিতে-জগদীশ চাকমা(চশমা), জয়কুমার চাকমা (মোটর সাইকেল), প্রত্যুত্তর চাকমা (অটোরিক্সা) ও মুনিন্দ্র লাল ত্রিপুরা (আনারস), ২নং চেংগী ইউপিতে-উষা কান্তি চাকমা(অটোরিক্সা), কনক বরণ চাকমা (চশমা), কালা চাদ চাকমা (টেবিল ফ্যান), গনেন্দ্র ত্রিপুরা (ঢোল), নব কুমার চাকমা (আনারস), পূর্ণ চন্দ্র চাকমা (ঘোড়া), সাধন চন্দ্র চাকমা (নৌকা), ৩নং পানছড়ি ইউপিতে- আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো আফজাল মিয়া (চশমা), কাজরী মারমা (আনারস), প্রিয়ংকর চাকমা (মোটর সাইকেল), সিন্দু কুমার চাকমা (ঘোড়া), ৪নং লতিবান ইউপিতে- বিমলেন্দু চাকমা (চশমা), শান্তি জীবন চাকমা (আনারস), ৫নং উল্টাছড়ি ইউপিতে- বিজয় চাকমা (আনারস), আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী- আবু তাহের (চশমা)।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*