দোকান ভাংচুর ঘটনায় খাগড়াছড়ির কদমতলীতে উত্তেজনা

Hamla Vangsurনিজস্ব প্রতিবেদক: গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় জেলা শহরের কদমতলী এলাকায় রিমা স্টোর নামে এক দোকানে ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় এলাকায় সৃষ্ট উত্তেজনা এখনো কাটেনি। বরং, এ ঘ্টনায় ওই এলাকার দোকানপাটে, চায়ের কাপে চলছে দিনভর আলোচনা-সমালোচনা। বিরাজ করছে থমথমে অবস্থা। স্থানীয়রা জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন খাগড়াছড়ি পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল), মো. রইচ উদ্দিন, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য আওয়ামীলীগ নেতা মংশেপ্রু চৌধুরী অপু ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সামসুদ্দীন ভূইয়া।

রিমা ষ্টোর’র সত্ত্বাধিকারী ও খাগড়াছড়ি পৌর আ’লীগের শিক্ষা ও মানব সম্পদ বিষয়ক সম্পাদক মো. কামাল উদ্দিন অভিযোগ করেন, পৌর নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের পক্ষে কাজ করায় শালবন শাপলাচত্বর এলাকার জিন্নত মাঝির ছেলে মো. রাহুল (২৩) ও শালবন রসুলপুর এলাকার জনৈক নুরুল ইসলামের ছেলে মো. জাকির (২৪) শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে দোকানে ঢুকে এলোপাতাড়ী ভাংচুর চালায়। এসময় ভাংচুর হয় দোকানের ফ্রিজ, কাপ-পিরিচ সহ কেরামবোর্ড। এতে তার ক্ষতি হয় প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক টাকা। তিনি আশংকা প্রকাশ করে আরো জানান, এ বিষয়ে আইনের আশ্রয় না নিতে তাকে প্রাননাশের হুমকি প্রদান করে হামলাকারীরা।

ক্যারামবোর্ড নিয়ে কোন হামলা হতে পারে কিনা এ প্রশ্নের জবাবে দোকান মালিক কামাল উদ্দিন বলেন, ক্যারাম বোর্ড নিয়ে হামলা কেন হবে? ক্যারামবোর্ডতো প্রত্যেক দোকানেই আছে। হামলাকারীরাতো দুরবর্তী এলাকার যুবক। নির্বাচনী পরবর্তী সহিংসতার অংশ হিসেবেই তার ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান ভাংচুর করা হয়েছে দাবী করে অতিশীঘ্রই হামলাকারীদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা রুজু করবেন জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে, স্থানীয় সূত্র জানায়, ওই এলাকায় সম্প্রতি দোকান ব্যবসার নামে একাধিক দোকানে ক্যারাম বোর্ড বসানো হয়েছে। এসব দোকানপাটে ক্যারামবোর্ডে দিন-রাতভর চলে যুব সমাজের আড্ডা। ফলে এ আড্ডায় স্কুল পড়ুয়া ছাত্ররাও সময় দিতে গিয়ে পড়ালেখার চরম ক্ষতি সাধিত হচ্ছে। সমাজে অশান্তি সৃষ্টি হচ্ছে। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক ওই এলাকার  এক যুবক জানান, এ ব্যাপারে পুলিশ প্রশাসনকে একাধিকবার মৌখিকভাবে জানানো হলেও পুলিশ প্রশাসন এ ব্যাপারে যেন উদাসীন ! অপরদিকে, এ ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে প্রকৃত দোষীদের গ্রেফতারের দাবী জানিয়েছেন খাগড়াছড়ি দিনমজুর সমবায় সমিতির সভাপতি মো. আবুল বশর। অন্যথায় তিনি সমিতির পক্ষ হতে জেলা শহরের মানববন্ধন কর্মসূচি পালনের মধ্যে প্রতিবাদ জানাবেন বলে জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*