দীঘিনালায় গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার: স্বামী শাশুড়ী পলাতক

dighi boduনিজস্ব প্রতিবেদক: খাগড়াছড়ির দিঘীনালা উপজেলার কবাখালীতে আফসানা মিমি মুক্তা (২০) নামে এক গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। স্থানীয়দের খবরের সূত্র ধরে রবিবার সকাল ১০টার দিকে গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। রবিবার সন্ধ্যায় মুক্তার লাশ খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে আনা হলে স্বজনদের কান্নায় পরিবেশ ভারী হয়ে ওঠে। মুক্তার লাশ এক নজর দেখতে হাজারো মানুষ ভিড় করে। ঘটনার পর পরই স্বামী ও শাশুড়ি পালিয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন মুক্তার স্বজনরা।

থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মিজানুর রহমান জানান, খবর পেয়ে দুপুর পৌনে ২টার দিকে ঝুলন্ত অবস্থায় মুক্তার লাশ উদ্বার করে। এ নিয়ে একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্টের ওপর পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

পরিবারের দাবি যৌতুকের জন্য মুক্তাকে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা না নেওয়ারও অভিযোগ করেছেন মুক্তার মামা জাহেদুল ইসলাম। তিনি জানান, থানায় মামলা দিতে গেলে পুলিশ মামলা গ্রহণে অপারগতা প্রকাশ করে।

মুক্তার মা নুর জাহান জানান, দুই বছর আগে দীঘিনালা উপজেলার কবাখালী গ্রামের মৃত নুরু মোহাম্মদ মজুমদারের মেঝো ছেলে মো. মিজানের সাথে মুক্তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে প্রতিনিয়িত যৌতুকের জন্য নির্যাতন চালানো হতো। এ নিয়ে কয়েক মাস আগেও সালিশ-দরবার হয়েছে। কয়েক দিন আগেও মুক্তার ওপর নির্যাতন চালানো হলে তাকে খাগড়াছড়ি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

মিজানের ছোট ভাই আরমান জানান, কয়েক দিন শাশুড়ির সাথে তার ভাবির ঝগড়া হয়। এ নিয়ে রবিবার সকালে তার ভাবি মুক্তাকে বড় ভাই মারধর করে বাসা থেকে বের হয়ে যায়। সকাল ১০টার দিকে সে জানতে পারে মুক্তা মারা গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*