তারা আমাকে মেরে ক্ষান্ত হয়নি, আহত অবস্থায় ব্রীজের নিচে ফেলে দেয়: মুক্তি সন্তান জসিম

ঙয২নিজস্ব প্রতিবেদক: “তারা আমাকে মেরে ক্ষান্ত হয়নি, আহত অবস্থায় আমাকে ব্রীজের নিচে ফেলে দেয়’’ হাসপাতালের বিছানায় অশ্রুজ্বলে এমন আক্ষেপ ঝাড়লেন খাগড়াছড়ি জেলার রামগড়ের জসিম উদ্দিন চৌধুরী নামক এক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। জানা গেছে, সে রামগড় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের  সাধারণ সম্পাদক। গত সোমবার সকালে সাড়ে ১১টার সময় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ের সামনে  সন্ত্রাসী হামলার শিকার  হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।   কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মানিক চন্দ্র শীল জানান, আহতের মাথা, হাত ও পায়ের চারটি স্থানে জখমের চিহৃ রয়েছে।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড সভাপতি খাজা নাজিম উদ্দিন জানান, গত শুক্রবার জেলা শহরে   জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রইছ  উদ্দিনের উপর হামলার প্রতিবাদ জানাতে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কার্যালয়ে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডদের একটি বৈঠক শেষে  কার্যালয়ের সামনের ব্রীজের উপর পেচন থেকে ৭/৮ জনের একটি সন্ত্রাসী দল জসিমকে মারধর করেতে থাকে চিৎকার শুনে আমি ও সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার হাশেম আলী এগিয়ে গেলে তাঁরা আমাদেরও গালমন্দ করে জসিমকে আহত অবস্থায় ব্রীজের নিচে ফেলে দেয়।  তিনি আরো জানান, মামলার প্রস্তুতি চলছে অবিলম্বে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূল শাস্তি দাবী করেন।

আহত জসিম উদ্দিন জানান, র্পূবপরিকল্পনা মোতাবেক সন্ত্রাসীরা আমার উপর এ হামলা করেছে তিনি বেশ কয়েক জনকে চিনতে পেরেছেন বলে জানান। তিনি বলেন, তাঁরা আমাকে মেরে ক্ষান্ত হয়নি  আহত অবস্থায় ব্রীজের নিচে ফেলে দেয়।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মজিফুর রহমান জনান, পিতার উপর হামলার প্রতিবাদ করবে সন্তানেরা সেখানেও সন্তানদের উপর নিলজ্জ হামলা। এটি খুবই লজ্জার- মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের সন্তানেরা হামলার শিকার হচ্ছে। তিনি দোষীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন।

রামগড় থানা অফিসার ইনচার্জ মাইন উদ্দিন জানান, খবর পেয়ে তিনি আহত জসিমকে দেখতে হাসপাতালে যান।  অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*