জমে উঠেছে পাহাড়ে ইউপি নির্বাচন: গোলাবাড়ীতে বিএনপি বিহীন সাত চেয়ারম্যান প্রার্থী

IMG_6130নিজস্ব প্রতিবেদক: আগামী ২৩ এপ্রিলকে টার্গেট করে জমে ওঠেছে পাহাড়ে ইউপি নির্বাচন। পোস্টার ব্যানারে ছেঁয়ে গেছে খাগড়াছড়ি জেলা সদরের ৫টি ইউনিয়ন এলাকার আনাচ-কানাচ। চলছে প্রার্থীদের নানা শ্লোগানের মাইকিং প্রচারনা। ১ম বারের ন্যায় ইউপি নির্বাচনে জাতীয় প্রতিক যুক্ত হওয়ায় দলীয় প্রার্থীরা রাজনৈতিক ভাবে ভিন্ন ভিন্ন কৌশলের ব্যাবহারকে কাজে লাগানোর পাশাপাশি স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মাঝে ভোট যুদ্ধে সম্প্রদায়ভিত্তিক মেরুকরণ করার প্রত্যয়ে দ্বিমুখী লড়াইয়ে লড়ছেন প্রার্থীরা এবারের নির্বাচনে।

নির্বাচনী প্রতিবেদনে এবার তুলে ধরা হলো জেলার ৩নং গোলাবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদ। সাধারনত: জাতীয় দুই দল আওয়ামীলীগ ও বিএনপি’র প্রার্থীর মধ্যে লড়াই হওয়ার কথা থাকলেও এ ইউনিয়নে কোন বিএনপি প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র গ্রহন করেননি। তবে ভোট যুদ্ধ হবে পাহাড়ী-বাঙালীর সাম্প্রদায়িক বিবেচনায়। এ ইউনিয়ন ঘুরে জানা যায়, এবারো বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামী সমর্থিত প্রার্থী জ্ঞানরঞ্জন ত্রিপুরা (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ক্যাউচিং মার্মার (চশমা) সাথে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। তবে অনেকের আশাবাদ জ্ঞানরঞ্জন ত্রিপুরার বিগত আমলের কর্মকান্ডের ফলশ্রুতিতে ২য় বারেও জয়যুক্ত হতে পারেন বলে অনেকের মুখশ্রোত।

সদর উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্র জানায়, ৩নং গোলাবাড়ী ইউপি নির্বাচনে দলীয় ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন ৭জন। তিনটি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে লড়ছেন ০৮জন ও সাধারন ৯টি ওয়ার্ডে ৩৭জনসহ  এ ইউনিয়নর ভোট যুদ্ধে লড়ছেন সর্বমোট ৫২জন প্রার্থী। এই ইউনিয়নে পাহাড়ী-বাঙালীসহ মোট ভোটার সংখ্যা-৬৩৫২জন। পুরুষ ভোটার-৩১৭৮ ও মহিলা ভোটার সংখ্যা-৩১৭৪জন। মোট ভোট কেন্দ্র হচ্ছে ৯টি ও ভোট কক্ষ থাকছে ২২টি।

চেয়ারম্যান পদে যারা লড়ছেন- আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান জ্ঞানরঞ্জন ত্রিপুরা (নৌকা) এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন ০৬জন প্রার্থী। এরা হলেন-আবুল হোসেন (আনারস), মো. এরশাদ হোসেন (মোটরসাইকেল),ক্যাউচি মার্মা (চশমা), মংক্রজাই মারমা (অটোরিকশা), দিপংকর ত্রিপুরা (ঘোড়া) ও বিপুল ভূষণ ত্রিপুরা (ঢোল)।

এদিকে, ১নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে লড়ছেন ০৩জন। এরা হলেন-জামেনা বেগম (তালগাছ), মানু মার্মা (বই) ও মোছা. নুরজাহান বেগম (হেলিকপ্টার)। ২নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে-ক্রাইউ মগিনী (সূর্যমূখীফুল) ও দিপালী ত্রিপুরা (কলম)। ৩নং সংরক্ষিত আসনে-পহেলী চাকমা (বক), সুনীল দেবী চাকমা (হেলিকপ্টার) ও পুবালী ত্রিপুরা (কলম) প্রতীক নিয়ে নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন।

অপরদিকে, ১নং সাধারন ওয়ার্ডে ৬জন প্রার্থীরা হলেন-অংক্য মার্মা (টিউবওয়েল), আবু ছিদ্দিক (তালা), কংচাই মার্মা (বৈদ্যুতিক পাখা), মো. এমদাদুল হক (মোরগ), মো. দিদারুল আলম (আপেল) ও মো. শফি মিয়া (ফুটবল)। ২নং ওয়ার্ডে- মো. জয়নাল আবেদনী মাসুম (টিউবওয়েল) ও মো. সৈয়দ আলী (মোরগ), ৩নং ওয়ার্ডে-পবণ জ্যোতি ত্রিপুরা (মোরগ) ও মেঘনাথ ত্রিপুরা (টিউবওয়েল), ৪নং ওয়ার্ডে-পাথর চন্দ্র ত্রিপুরা (ফুটবল), মুরতী মোহন দেওয়ান (টিউবওয়েল) ও সমলেশ্বর ত্রিপুরা (মোরগ), ৫নং ওয়ার্ডে-উল্লাস ত্রিপুরা (ফুটবল) ও চাইলামং চৌধুরী (বৈদ্যুতিক পাখা), ৬নং ওয়ার্ডে-ফুলেন্দ্র লাল ত্রিপুরা (ফুটবল), রামকুমার ত্রিপুরা (মোরগ) ও হ্লাপ্রুমং মগ (আপেল), ৭নং ওয়ার্ডে-ক্যজপ্রু মারমা (আপেল), কংচাই মার্মা (টিউবওয়েল),থৈইহলাপ্রু মার্মা (মোরগ),রেম্রাচাই মারমা (বৈদ্যুতিক পাখা) ও মলিন বিকাশ ত্রিপুরা (ফুটবল) ৮নং ওয়ার্ডে লড়ছেন ৭জন। এরা হলেন-অনাদি চাকমা (মোরগ), তরুন কান্তি চাকমা (টিউবওয়েল), মিটন চাকমা (বৈদ্যুতিক পাখা), রমজয় ত্রিপুরা (আপেল), রমেশ কান্তি চাকমা (ফুটবল),শান্তিকুমার চাকমা (তালা) ও সুপন চাকমা (ভ্যানগাড়ী) এবং ৯নং ওয়ার্ডে লড়ছেন ৬জন। এরা হলেন-দয়াল মোহন ত্রিপুরা (তালা), বসন্ত কুমার ত্রিপুরা (বৈদ্যুতিক পাখা), বীরময় ত্রিপুরা (মোরগ), দিনেশ কান্তি ত্রিপুরা (বৈদ্যুতিক পাখা), মকানন্দ ত্রিপুরা (ফুটবল) ও মনবিকাশ ত্রিপুরা (আপেল) প্রতীক নিয়ে লড়ছেন।

একনজরে ওয়ার্ড ভিত্তিক ভোটার সংখ্যা- ১নং ওয়ার্ডে-১০৩৮, ২নং ওয়ার্ডে-১১০১, ৩নং ওয়ার্ডে-২৯১, ৪নং ওয়ার্ডে-৩৬০, ৫নং ওয়ার্ডে-৩৬২, ৬নং ওয়ার্ডে-৫৬৪,৭নং ওয়ার্ডে-৯৫৩, ৮নং ওয়ার্ডে-৯৫২ ও ৯নং ওয়ার্ডের ভোটার সংখ্যা-৭৩১জন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*