চীনে অনলাইনে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে শিশু

পার্বত্যবাণী ডেস্ক:Child চীনে শিশু বিক্রির অবৈধ বাজার গড়ে উঠেছে। অনলাইনে প্রকাশ্যেই বিক্রি করা হচ্ছে শিশু। দেশটিতে প্রতিবছর অপহরণ হওয়া ২০ হাজার শিশুর মধ্য থেকেই বেশির ভাগ শিশুকে বিক্রি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। প্রতিবছর শিশু হারাচ্ছে চীনের হাজার হাজার অভিভাবক। চীন সরকার অপহরণ হওয়া এসব শিশুর সংখ্যা না জানালেও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর এ সংখ্যা বার্ষিক ২০ হাজার কিংবা সপ্তাহে ৪শ’ বলে জানিয়েছে। ওদিকে, চীনের রাষ্ট্রপরিচালিত গণমাধ্যম বলছে, অপহৃত শিশুর সংখ্যা বছরে ২ লাখও হতে পারে। যদিও পুলিশ এ পরিসংখ্যান নাকচ করেছে। শিশু বিক্রির বাজারে ১ লাখ ইউয়ান পর্যন্ত দামে বিক্রি হয় ছেলে শিশু। মেয়ে শিশুর দাম এর দ্বিগুণ। চীনে ঐতিহ্যগতভাবেই ছেলে শিশু থাকে পছন্দের তালিকায়। কারণ ছেলে শিশুই টিকিয়ে রাখে পরিবারের নাম এবং বুড়ো বাবা-মা’র জন্য দিতে পারে আর্থিক সহায়তা। অপহরণের পর শিশুদেরকে বেশির ভাগ সময়ই দত্তক দেয়ার জন্য বিক্রি করা হয়। তবে কোনো কোনো শিশুকে জোর করে ভিক্ষাবৃত্তিতেও নামায় অপরাধী চক্র। অপহরণ হওয়া বেশির ভাগ শিশুই চিরতরে হারিয়ে যায়। চীনে শিশু পাচারের বিষয়টি সবার নজরে আসে ১২ বছর আগে। সে সময় গুয়াংঝি প্রদেশে পুলিশ একটি বাসের পেছন থেকে ২৮ শিশুকে উদ্ধার করে। তাদেরকে ওষুধ দিয়ে চুপ করিয়ে রেখে একটি নাইলনের ব্যাগে ভরে পাচার করা হচ্ছিল। এতে এক শিশু দম বন্ধ হয়ে মারাও যায়। এ ঘটনায় জড়িত পাচারকারীদেরকে ধরে এর হোতাদের মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করে কর্তৃপক্ষ। পরবর্তীতে কর্তৃপক্ষ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান জোরদার করায় তারা সম্প্রতি আরো বেশি কৌশলী হয়ে উঠেছে। এখন বেশিরভাগ কর্মকান্ডই তারা পরিচালনা করছে অনলাইনে।দাগী অপরাধী চক্রগুলো এখন চুরি করা শিশুদেরকে ওয়েবসাইট এবং চ্যাট ফোরামের মাধ্যমে বিক্রি করছে। পুলিশী অভিযানে এ পর্যন্ত ১ হাজার ০৯৪ জন গ্রেপ্তার এবং ৩৮২ জন শিশু উদ্ধার পেলেও থেমে নেই অনলাইনে শিশু বিক্রির ব্যবসা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*