চিকিৎসার অভাবে ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুর দিকে অগ্রসর হচ্ছেন মুক্তিযোদ্ধা আ: মফিজ

Birনিজস্ব প্রতিবেদক: চিকিৎসার অভাবে ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুর দিকে অগ্রসর হচ্ছেন জীবন বাজিরেখে দেশ স্বাধীন করার কারিগর কুমিল্লা জেলার এক মুক্তিযোদ্ধা। স্বাধীনতার সংগ্রামে তিনি বিজয়ী হলেও ফুসফুসে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে আজ জীবন সংগ্রামে এক পরাজিত সৈনিক হিসেবে আর্তনাদ করছেন। তিনি হলেন কুমিল্লা সদর উপজেলার কালিরহাট পাকামারা গ্রামের মৃত এয়াকুব আলীর বীর পুত্র বীরমুক্তিযোদ্ধা আবদুল মফিজ। যার মন্ত্রণালয়ের সনদপত্র নং-৬৮৭৫৩, গেজেট নং-২৯৫, মুক্তিবার্তা নং-০২০৪০১০৮১৯।

জানা যায়, সাতজন ছেলে মেয়ের জীবন জীবিকার তাগিদে জীবন সংগ্রাম চালাতে গিয়ে এ বীরমুক্তিযোদ্ধা ১৯৮০ সালের দিকে পার্বত্য খাগড়াছড়ি জেলায় ক্ষুদ্র ব্যবসা বাণিজ্য চালিয়ে যান। সংসারে চার কন্যা সন্তান বড় হওয়ায় তাদের বিয়ে দিতে জীবনের শেষ সময়ে পানছড়ির গহীন অরণ্য থেকে লাকড়ী কেটে বাজারে বিক্রি করার মতো কঠোর পরিশ্রমও করেন এ বীরমুক্তিযোদ্ধা। কঠোর পরিশ্রম করলেও কিছুটা সুখী ছিলো ছোট ছোট ৪ ছেলের পড়ালেখা চালিয়ে যাওয়ার এক স্বপ্ন নিয়ে। কিন্ত গতবছরের কোন একদিন (৫মাস পূর্বে) দুরারোগ্য রোগে আক্রান্ত হন বীর মুক্তিযোদ্ধা আ: মফিজ। প্রথমে তিনি কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে ভর্তি হন। চিকিৎসকের পরামর্শমতে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষায় ধরা পড়ে ফুসফুসে ক্যান্সার। সরকারি হাসপাতালে এ রোগের চিকিৎসা না থাকায় ভর্তি হন বেসরকারি হাসপাতাল কুমিল্লা টাওয়ার নামক এক হাসপাতালে। সেখানে লিভার বিশেষজ্ঞ ডা: বেলায়েত হোসেনের পরামর্শ মতে চলে যান ভারতের মাদ্রাজে। ব্যায়বহুল চিকিৎসা খরচ চালাতে গিয়ে এ মুক্তিযোদ্ধা খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়িতে অর্জিত একমাত্র সম্পত্তি জমি-জমা বিক্রি করে আজ সর্বস্ব নি:স্ব। অর্থের অভাবে মাত্র ১৫দিনের চিকিৎসা নিয়ে ফিরে আসেন ফের কুমিল্লায়। ছয়মাস যাবত তিনি ঔষুধ ক্রয় করারও ক্ষমতা হারিয়েছেন। তার ছেলে-মেয়েরাও বীর পিতার চিকিৎসা করাতে গিয়েও নি:স্ব হয়ে পড়েছেন। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তাঁর ফুসফুসে ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে কমপক্ষে ৪টি ছিদ্র দেখা দিয়েছে। ভারতের মাদ্রাজে গিয়ে পরিপূর্ণ চিকিৎসা না নিয়ে মধ্যপথে থেমে যাওয়ায় দিন দিন ক্যান্সার জীবানু ছড়িয়ে পড়ছে শরীরে।

এদিকে, তাঁর চিকিৎসার বিষয়ে পরিবারের পক্ষ হতে কুমিল্লা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের জেলা কমান্ড সফিউল আহমদের নিকট লিখিত মানবিক আবেদন করা হলেও আশার বাণী ও একটি প্রত্যয়নপত্র ছাড়া আর কোন সাড়া পাওয়া যায়নি। বর্তমানে তিনি বিনা চিকিৎসায় কুমিল্লায় নিজবাড়ীতে চিকিৎসার অভাবে ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুর দিকে অগ্রসর হচ্ছেন।

তাঁর ছেলে মো.জালাল হোসেন অশ্রুজ্বলে জানান, যে ভাতা পান তা দিয়ে ঔষধ কিনতে ও মাসের কয়েক দিনেই শেষ হয়ে যায়। ফলে মৃত্যুর দিকে অগ্রসর হচ্ছেন তার পিতা। দেশের শ্রেষ্ট সন্তান এই বীর সৈনিকের দুর্দিনে সমাজের বিত্তবানদের তার পাশে দাড়ানোঁর আহবান জানিয়েছেন বীর সৈনিকের এই পুত্র। বীর এই মুক্তিযোদ্ধাকে বাঁচাতে পরিবারের সদস্যরা সমাজের বিত্তবান সহ প্রধানমন্ত্রীর সাহায্যের দিকে তাঁকিয়ে আছেন।

সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা: মো: মাইন উদ্দিন, একাউন্ট নং-৪১৩৭-৫৮৪৮-১৩৩০০, এবি ব্যাংক, ফেনী ব্রাঞ্চ। বিকাশ নং-০১৮৭৮৫৮৪১৬৬, ০১৮২৩১৬৩০৩৬

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*