খাগড়াছড়ি যুগ্ম জেলা জজ আদালতের বিচারিক ক্ষমতার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট

hicourtআদালত প্রতিবেদক: খাগড়াছড়ি যুগ্ম জেলা জজ আদালত এর বিচারিক ক্ষমতার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোটে রিট পিটিশন দাখিল করেছেন সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী এডভোকেট এস এম জুলফিকার আলী।
রিট পিটিশনে উল্লেখ করা হয় তিন পার্বত্য জেলা (খাগড়াছড়ি, রাংগামাটি ও বান্দরবান) পারিবারিক আদালত নেই। পার্বত্য চট্টগ্রামকে বিশেষ অঞ্চল হিসাবে আখ্যা দিয়ে সরকার পার্বত্য চট্টগ্রাম শাসন বিধি মোতাবেক তিন পার্বত্য জেলা পরিচালনা করে আসছে। এ অঞ্চলে বসবাসরত অদিবাসীদের বিচার প্রক্রিয়া পার্বত্য শাসন বিধি ও দেওয়ানী আইনের কতিপয় ধারায় পরিচালিত হয়ে আসছে। এছাড়া তিন পার্বত্য জেলায় পারিবারিক আদালত নেই এবং পারিবারিক বিরোধ নিষ্পত্তির বিষয়েও সরকার অন্য কোন আদালতকে বিচারিক ক্ষমতা প্রদান করেনি। তথাপি খাগড়াছড়ি যুগ্ম জেলা জজ আদালত পারিবারিক বিরোধ সংক্রান্ত মামলা গুলো দেওয়ানী মামলা হিসাবে গ্রহণ করে বিচার কার্য করে পরিচালনা করে আসছেন। পারিবারিক বিষয়ে বিরোধ নিষ্পত্তি করার এখতিয়ার কোন কর্তৃপক্ষের তা পার্বত্য চট্টগ্রাম শাসন প্রবিধান-১৯০০ এ নাই। খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার যুগ্ম জেলা জজ জেলায় দেওয়ানী কার্যবিধি ও পারিবারিক আদালত না থাকা সত্তে¡ও দেন মোহর ও খোরপোষ সংক্রান্ত মামলা গুলো দেওয়ানী মামলা হিসাবে আমলে নিয়া বিচার কার্য পরিচালনা করায় খাগড়াছড়ি যুগ্ম জেলা জজ আদালতে বিচারাধিন দেওয়ানী ১৮৭/১৩ মামলার বিবাদী মো. আনোয়ার হোসেন হাইকোর্টে রিট পিটিশন মামলা নং ১৩৮৩/২০১৬ দাখিল করেন। গত বৃহস্পতিবার (১১/০২/২০১৬) ইং তারিখ বিচারপতি কামরুল ইসলাম সিদ্দিকি ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের দ্বৈত বেঞ্চে কার্যতালিকার ৩৪০ নং সিরিয়ালে শুনানীর জন্য ধার্য্য ছিল। তবে সময় স্বল্পতার কারণে ঐদিন মামলাটির শুনানী গ্রহণ সম্ভব হয়নি। আগামী রোববার (১৪.০২.২০১৬) এ বিষয়ে শুনানী হবে বলে রিটকারী আইনজীবী এস এম জুলফিকার আলী জানান।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে রিটকারীর আইনজীবী এসএম জুলফিকার আলী জানান, যেহেতু বিষয়টি পারিবারিক এবং যেহেতু তিন পার্বত্য জেলায় পারিবারিক আদালত নেই, এবং পারিবারিক বিরোধ সংক্রান্ত মামলা গুলোর বিচার কার্য পরিচালনার এখতিয়ার প্রদান করা হয় নাই, সেহেতু খাগড়াছড়ি যুগ্ম জেলা জজ আদালতের পারিবারিক বিষয়ে বিচার করার এখতিয়ারবান নন। তাই এই বিষয়ে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষে রিট পিটিশন দাখিল করেছি। আগামী রোববার এ বিষয়ে শুনানী হবে। এছাড়া তিন পার্বত্য জেলায় অভিলম্বে পারিবারিক আদালত স্থাপন করার জন্যও অপর একটি রিটি মামলা দায়ের করা হবে বলেও জানান এই আইনজীবী।

উল্লেখ্য যে, গত ৪/০২/২০১৬ইং তারিখে এখতিয়ার বর্হিভূত ভাবে পারিবারিক আদালত সক্রান্ত মামলা পরিচালনার আইনগত বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে জবাব চেয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের সচিব সহ ৫ জনকে আইনগত নোটিশ দিয়েছিলেন এই আইনজীবী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*