কুলিরং ত্রিপুরার চুলের জটবাঁধা দৈর্ঘ্য সাড়ে ৯ফুট,

Kulirongপার্বত্যবানী ডেস্ক: চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের করেরহাট ইউনিয়নের দুর্গম পাহাড়ী জনপদ সাইবেনী খিল আদিবাসী পাড়ায় সন্ধান মিলেছে কুলিরং ত্রিপুরা নামে এক দীর্ঘকেশী নারীর।  ৬০ বছর বয়সী কুলিরং ত্রিপুরার চুল প্রায় ৯ ফুট লম্বা। তবে তাঁর এ দীর্ঘ চুল বিশ্বের রেকর্ডধারী নারীদের মত ঝরঝরে সুস্থ-স্বাভাবিক নয়। কুলিরং এর চুল জটবাঁধা, যত্মাত্মি কিছুই নেই।

এর আগে বলতে হয়, বিশ্বের দীর্ঘকেশী নারীদের কথা আসতেই নাম আসে যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের আশা ম্যান্ডেলা, চিনের যাই কুইপিং আর প্রতিবেশী দেশ ভারতের রেশমা কাম্বলের নাম। তাদের চুলের দৈর্ঘ্য যথাক্রমে ১৯ ফুট ছয় ইঞ্চি, ১৮ ফুট সাড়ে চার ইঞ্চি ও ৬ ফুট দশ ইঞ্চি। এসব দূর দেশের গল্প। এমন লম্বা চুলের অধিকারী রয়েছে নিজ দেশেই।

কুলিরং ত্রিপুরা জানান, শুধুমাত্র ধর্ম দেবতাকে খুশি করতে ১৫ বছর ধরে চুল কাটা বন্ধ রাখেন কুলিরং। নিজের চুলের মুঠি হাতে ধরে পাড়ার এক ঘর থেকে অন্যঘরে অনায়াসেই চলাফেরা করছেন। দুই ভাঁজে বেঁধে রাখা কুলিরং ত্রিপুরার চুল পরিমাণ করে দেখা যায়, মাথা থেকে মাটি পর্যন্ত এক ভাঁজে রয়েছে ৪ফুট ১০ ইঞ্চি, বাকি ৪ ফুট ২ ইঞ্চি অপর ভাঁজের সাথে বেঁধে রাখা হয়েছে। স্বামী রূপায়ধন ত্রিপুরা স্ত্রী চুল সম্পর্কে জানান, আমরা পুনজন্ম বিশ্বাস করি তাই চুলে জট বাঁধলে মহাদেবের (ধর্মীয় দেবতা) সন্তুষ্টির জন্য আর চুল কাটা হয় না। তিনি আরো জানান, তার স্ত্রী কুলিরং এর চুল এমনিতেই লম্বা ছিল। ৪৫ বছর বয়সে হঠাৎ চুলে জটবাঁধা শুরু হলে আর যত্ন নেয়া হয়নি, গত ১৫ বছর কখনো তেল মাখেনি, মাছ-মাংস ও চর্বি জাতীয় খাওয়া থেকে সে বিরত ছিল। এত লম্বা চুল সামলে কিছুটা কষ্ট হয় জানিয়ে কুলিরং বলেন, হাঁটার সময় চুলের মুঠি হাতে নিয়ে হাঁটি, ঘুমোতে গেলে খাটের পাশে ভাঁজ করে রাখি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*