ঐতিহ্যিক চেতনা ধরে রাখতে তরুণ সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে : জুয়েল চাকমা

নিজস্ব প্রতিবেদক: খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগ নেতা জুয়েল চাকমা বলেছেন, যে কোন দেশে এবং সমাজে তরুণরাই সকল সংকট-সম্ভাবনায় অগ্রণী অবদান রাখে। একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধেও তরুণ-কিশোররাই জীবনা বাজি রেখে দেশ মাতৃকার সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। একই ভাবে পার্বত্যাঞ্চলেও এলাকার শান্তি-সম্প্রীতি ও উন্নয়নে যুব সমাজকে ক্রীড়া-সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্যিক চেতনা ধরে রাখতে উদার মানসিকতায় এগিয়ে আসতে হবে।
তিনি রোববার সন্ধ্যায় মহালছড়ি উপজেলার দূর্গম পরঞ্জয় মহাজন পাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে বিজু উৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
মুবাছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান রবীন্দ্র খীসা’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন খাগড়াছড়ি সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি প্রদীপ চৌধুরী, খাগড়াছড়ি জেলা যুবলীগের যুগ্ম সা: সম্পাদক মুকুল চাকমা, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি টেকো চাকমা, স্খানীয় ইউপি সদস্য ধীমান চাকমা, জেলা ক্রীড়া সংস্থা’র নির্বাহী সদস্য বৈরী মিত্র চাকমা, স্থানীয় সমাজকর্মী রমেন চাকমা এবং পূর্ণেন্দু চাকমা।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জুয়েল চাকমা এলাকার শান্তি ও সম্প্রীতি অটুট রাখার আহ্বান জানিয়ে বলেন, একই এলাকায় নানা ধর্মের-বর্ণের ও জাতির মানুষ বসবাস করলে নানা কারণে দ্বিমত-অনৈক্য এবং ছোট-খাটো ভুল বোঝাবুঝি হতে পারে। গণতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় এসবকে আইন ও সামাজিক শৃঙ্খলায় আনতে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। কারো সাথে স্থায়ী বৈরীতায় না গিয়ে বোঝাপড়ার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের পথ খুঁজলেই এলাকায় শান্তি ও সহাবস্থান সুদৃঢ় হবে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি আয়োজক সংগঠন ‘রিজেং ক্লাব’-কে ২০ হাজার টাকা, লেমুছড়ি পচপট্যা ক্লাবকে ২৯ হাজার টাকা এবং চোংড়াছড়িমুখ ইয়ুথ ক্লাবকে ৫ হাজার টাকা নগদ অনুদান প্রদান করেন।
এসময় তিনি পরঞ্জয় পাড়ায় বিজু উপলক্ষে আয়োজিত ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। সভা শেষে পার্বত্য চট্টগ্রামের জনপ্রিয় কন্ঠ শিল্পী পল্টু চাকমা ও সৌখিন কন্ঠ শিল্পী অপু চাকমা’র পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*