এ কেমন বর্বরতা !

chandpurপার্বত্যবাণী ডেস্ক: গাজীপুর জেলায় চাঁদপুরের হাইমচর উপজেলার এক শিশু অমানবিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে। বর্তমানে নির্যাতিত শিশুটি সারা শরীর ও মাথা ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় হাইমচর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ মোস্তফা সরদার নামে একজনকে আটক করেছে।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা গেছে, জান্নাত নামের ৯ বছরের এক শিশুকে মোস্তাফা সরদার গাজীপুর জেলার জয়দেবপুরে জনৈক ওমর ফারুকের বাসায় গত এক বছর আগে নিয়ে যায় কাজের মেয়ে হিসেবে। সেখানে গত ৫ সেপ্টেম্বর ও ৯ সেপ্টেম্বর শিশুটিকে ওমর ফারুক ও তার স্ত্রী মনি বেগম অমানুষিক নির্যাতন চালায়। তার অপরাধ ছিল জান্নাত বাড়ি যাবার জন্য আবদার করে। খবর পেয়ে শিশুটিকে গত ১৪ সেপ্টেম্বর রাতে মোস্তাফা সরদার নিজেই চাঁদপুরের হাইমচরে নিয়ে আসে।
প্রত্যক্ষদর্শী খুরশিদ আলম জানান, হাইমচরে শিশুটিকে আনার পর স্থানীয় লোকজন শিশুটির এ অবস্থা দেখে হাসপাতালে ভর্তি করে এবং মোস্তফাকে পুলিশে সোপর্দ করে।জান্নাত হাইমচরের বাংলাবাজার বেড়িবাঁধ এলাকায় মিন্টু মাতাব্বার ও ফিরোজা বেগমের মেয়ে।
পুলিশ জানায়, ৫ সন্তানসহ জান্নাতকে রেখে তার পিতা ওই পরিবার থেকে অনেক আগেই চলে যায়। তার পর থেকে জান্নাতের মা ফিরোজা বেগম অসহায় হয়ে পড়লে তার মেয়েকে কাজের জন্য গাজীপুরে পাঠায়।
হাইমচর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেও চিকিৎসক ডা.দীপন দে বলেন, জান্নাতকে বিভিন্ন সময় আমানুষিক নির্যাতন চালায়। এর মধ্যে টাইলসের সঙ্গে আঘাত দেয়ায় মাথায় প্রচণ্ড ক্ষত হয়। এছাড়া শরীরের বিভিন্ন অংশে গরম খুনতি ও বিদুতের তারের আঘাতে ক্ষত হয়ে যায়। জান্নাতের পুরো সুস্থ্য হতে হাসপাতালে ১৫/২০ দিন থেকে চিকিৎসা নিতে হবে।
হাইমচর থানার ওসি তদন্ত মো. আলমগীর বলেন, শিশুটি নির্যাতনের ব্যাপারে পুলিশ বাদী হয়ে একটা জিডি করেছে। আসামিদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*