ইউপি নির্বাচন: বিএনপি’র প্রার্থী শূন্যতায় খাগড়াছড়ি সদরে জমে ওঠেছে নৌকা বনাম স্বতন্ত্র প্রতিকের লড়াই

Whhনিজস্ব প্রতিবেদক: আগামী ২৩ এপ্রিলকে টার্গেট করে জমে ওঠেছে পাহাড়ে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে জাতীয় রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগ, বিএনপি ও জাসদের প্রার্থীসহ স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান পদে ২৬জন নির্বাচনী লড়াইয়ে রয়েছেন। তন্মধ্যে নৌকা প্রতিকে লড়ছেন ৫জন, সমাজতান্ত্রিক দলের-১জন ও বিএনপি-১জনসহ অপরাপর ১৯জন স্বতন্ত্র প্রার্থী।
স্থানীয়রা জানান, সদ্য সমাপ্ত খাগড়াছড়ি ও মাটিরাঙা পৌরসভা  নির্বাচনে জাতীয় দলীয় প্রতীক নৌকা বনাম ধানেরশীষের মধ্যে যে ধরনের প্রতিদ্বন্ধিতা গড়ে ওঠেছিল এবার ইউপি নির্বাচনে খাগড়াছড়ি সদরে তেমন প্রতিদ্বন্ধিতা জমে ওঠেনি।
জানা যায়, ৫টি ইউনিয়নের মধ্যে একটি মাত্র ইউনিয়নেই বিএনপি প্রার্থীতা দেয়ায় নৌকা প্রতিকের বিপরীতে আঞ্চলিক সংগঠনগুলোর সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীদের স্বতন্ত্র প্রতিকের প্রতিদ্বন্ধিতা হচ্ছে। আঞ্চলিক সংগঠনগুলোর সমর্থিত প্রার্থী ও সরকার দলের প্রার্থীরা প্রতিশ্রুতির ফুলঝুড়িতে ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে ভোট ভিক্ষা চালিয়ে যাচ্ছেন। পোস্টারে ব্যানারে ছেঁয়ে গেছে নির্বাচনী এলাকা। চলছে নানাবুলির মাইকিং, পার করছে প্রার্থীরা ব্যস্ত সময়।
সদর উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্র জানায়, খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে সর্বমোট ২৬জন চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন। খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের মধ্যে শুধুমাত্র খাগড়াছড়ি সদর ইউনিয়নে ক্ষেত্র মোহন রোয়াজা নামে একজনকে প্রার্থী দিয়েছে বিএনপি। এছাড়া চেয়ারম্যান পদে ১নং সদর ইউনিয়নে-৫জন, ২নং কমলছড়ি ইউনিয়নে- ৬জন, ৩নং গোলাবাড়ী ইউনিয়নে-০৭জন, ৪নং পেরাছড়া ইউনিয়নে-০৩জন ও ৫নং ভাইবোনছড়া ইউনিয়নে লড়ছেন-০৫জন।

এ বিষয়ে খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি অনিমেষ দেওয়ান নন্দিত জানান, অন্যান্য দলগুলোর চাপ থাকার কারনে বিএনপি’র শক্তিশালী প্রার্থীরা ধানের শীষ প্রতীক না নেওয়ায় সদর উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে দলের পক্ষ হতে মনোনয়ন দেয়া সম্ভব হয়নি। এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, কোন জাতীয় বা আঞ্চলিক দলের সাথে বিএনপি’র স্থানীয় কোন নেতাকর্মীর গোপন আতাঁত বা সমঝোতা ঘটেনি।

১নং সদর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান আম্যে মারমা (নৌকা), ক্ষেত্র মোহন রোয়াজা (ধানের শীষ), স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হচ্ছেন-জুকেশ চাকমা (ঘোড়া), পরিমল চাকমা (মোটর সাইকেল) ও প্রীতিবিন্দু দেওয়ান আনারস। এ ইউনিয়নে সর্বমোট ভোটার সংখ্যা-৬৩২৯, ৩টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে লড়ছেন-৭প্রার্থী ও ৯টি সাধারন ওয়ার্ডে প্রার্থী রয়েছে-২৭জন।
২নং কমলছড়িতে চেয়ারম্যান পদে যারা লড়ছেন- জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদ’র মনোনীত প্রার্থী আওউ মারমা (মশাল), আওয়ামীলীগ প্রার্থী-রুতান চৌধুরী (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হচ্ছেন-সন্তোষময় চাকমা (মোটর সাইকেল), সাউপ্রু মারমা (আনারস), সুমন আহম্মেদ (চশমা) ও সূর্য্য বিকাশ চাকমা (ঘোড়া)। এ ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা-৯৪৪৬জন, পুরুষ-ভোটার-৪৮০৩ ও মহিলা ভোটার সংখ্যা-৪৬৪৩জন। তিনটি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে লড়ছেন ১১জন ও সাধারন ৯টি ওয়ার্ডে ৩১জন প্রার্থী রয়েছেন।
৩নং গোলাবাড়ী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন- আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান জ্ঞানরঞ্জন ত্রিপুরা (নৌকা)। এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন আবুল হোসেন (আনারস), মো. এরশাদ হোসেন (মোটরসাইকেল),ক্যাউচি মার্মা (চশমা), মংক্রজাই মারমা (অটোরিকশা), দিপংকর ত্রিপুরা (ঘোড়া) ও বিপুল ভূষণ ত্রিপুরা (ঢোল)। এ ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা-৬৩৫২জন। পুরুষ ভোটার-৩১৭৮ ও মহিলা ভোটার সংখ্যা-৩১৭৪জন। তিনটি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে লড়ছেন ০৮জন ও সাধারন ৯টি ওয়ার্ডে লড়ছেন ৩৭জন প্রার্থী।
৪নং পেরাছড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন-আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান সঞ্জীব ত্রিপুরা (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তপন বিকাশ ত্রিপুরা (মোটর সাইকেল) ও মিল্টন চাকমা (আনারস)। এ ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা-৭৩৮০জন। পুরুষ ভোটার-৩৬৮২  ও মহিলা ভোটার সংখ্যা-৩৬৯৮জন। তিনটি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে লড়ছেন ০৯জন ও সাধারন ৯টি ওয়ার্ডে ২১জন ভোট যুদ্ধে লড়ছেন।
৫নং ভাইবোনছড়া ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী হচ্ছেন-বনেন্দ্র লাল ত্রিপুরা (নৌকা) এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান কান্তি লাল দেওয়ান (মোটর সাইকেল), সাবেক চেয়ারম্যান আপ্রুশি মারমা (আনারস) ও হেভিওয়েট প্রার্থী বর্তমান ওয়ার্ড মেম্বার পরিমল ত্রিপুরা (চশমা) সহ অপর বাঙালি প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন(ঘোড়া)। এ ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা-১৩২২১জন। পুরুষ ভোটার-৬৬৫২ ও মহিলা ভোটার সংখ্যা-৬৫৬৯জন। তিনটি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে লড়ছেন ০৮জন ও সাধারন ৯টি ওয়ার্ডে ২৯জন প্রার্থী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*