আগামী ৫বছরে পার্বত্য চট্টগ্রামে দৃশ্যমান পরিবর্তন আনা হবে: পার্বত্য সচিব

IMG_5617নিজস্ব প্রতিবেদক: পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয়ের সচিব ও পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নববিক্রম কিশোর ত্রিপুরা এনডিসি বলেছেন, আগামী ৫-১০বছরের মধ্যে পার্বত্য চট্টগ্রামে দৃশ্যমান পরিবর্তন আনা হবে। তিনি মঙ্গলবার সকালে একুশে পদকপ্রাপ্ত  গুনী লেখক মংছেন ছীং মংছিন ও বাংলা একাডেমী  পুরস্কারপ্রাপ্ত লেখক গবেষক প্রভাংশু ত্রিপুরাকে খাগড়াছড়ি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি ইনস্টিটিউট’র পক্ষ হতে সম্বর্ধনাকালে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার পরিবর্তনে ও উন্নয়নে বিশ্বাসী। সারাদেশের ন্যায় সুষমের উন্নয়নের মাধ্যমে পার্বত্যাঞ্চলে শিক্ষা, যোগাযোগ, অর্থনৈতিক খাতসমূহে পরিবর্তন আনতে সরকারের নির্দেশনায় পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয় কাজ করছে। অতিশীঘ্রই পার্বত্যাঞ্চলের দুর্গম এলাকায় ৫হাজার ৮টি সোলার প্যানেল স্থাপন সহ ২৬টি গ্রামে ২৬টি গাভী পালন প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এছাড়াও পার্বত্য চট্টগ্রামের বিভিন্ন প্রজাতির বাঁশ দ্বারা একটি লাভজনক প্রকল্প বাস্তবায়নে কাজ করছে মন্ত্রণালয়। এসময় তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, সঠিক ভাবে পৃষ্ঠপোষকতা পেলে আগামীতে পাহাড়ের প্রতিভাবান গুনীজনরা নোবেল পুরস্কারে ভূষিত হবেন। এসময় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তাঁর সহধর্মিণী সংগীত শিল্পী অনামিকা ত্রিপুরা। এর আগে তিনি খাগড়াছড়ি ক্ষুদ্র নৃগোষ্টির সাংস্কৃতিক ইনষ্টিটিউট (নৃসাই) লাইব্রেরী জাদুঘরের উদ্বোধন এবং নৃসাই’র সহযোগিতায়  প্রকাশিত ৪টি বই, ডুকুমেন্টারী ,শিল্পীদের ২টি অডিও, ভিডিও সিডির মোড়ক উম্মোচন করেন। এসময় প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ হতে অতিথিদের উত্তরীয় প্রদান করা হয়।

DSC_5000খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি’র বক্তব্য রাখেন খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান, পুলিশ সুপার মজিদ আলী (বিপিএম) সেবা, সনাকের সভাপতি ড: সুধীন চাকমা, গুনী লেখক মংছেন ছীং মংছিন ও বাংলা একাডেমী  পুরস্কারপ্রাপ্ত লেখক গবেষক প্রভাংশু ত্রিপুরা, পাজেপ সদস্য জুয়েল চাকমা। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির উপ-পরিচালক সু-সময় চাকমা। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন প্রকল্প পরিচালক জীতেন চাকমা।

এছাড়া অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, টাস্কফোর্স এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তৃপ্তি চাকমা, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান চঞ্চুমনি চাকমা, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার, অরণ্য বার্তা সম্পাদক চৌধুরী আতাউর রহমান, প্রেসক্লাব সভাপতি জীতেন বড়ুয়া, সাধারন সম্পাদক আবু তাহের মুহাম্মদ, গবেষক চিংলামং চৌধুরী প্রমূখ। পরে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির শিল্পীদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয়।

সূত্র জানায়, খাগড়াছড়ি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি ইনস্টিটিউটে মোড়ক উন্মোচন করা হয় শরৎ রোয়াজার নির্বাচিত কবিতা, ত্রিপুরা ভাষায় বরেন্দ্র লাল ত্রিপুরার আমারী কক-ককবরক্, মথুরা বিকাশ ত্রিপুরার গুরুনি য়াপ্রি, সুগত চাকমার পার্বত্য চট্টগ্রামের ভাষা। এছাড়া চাকমা, মারমা ও ত্রিপুরা ভাষায় অডিও এ্যালবাম (পার্ট-১) রতন ত্রিপুরার পরিচালনায় ত্রিপুরা লোককাহিনী ভিডিও পুন্ডা তানাই।

প্রসংগত: চলতি বছরে গুনী লেখক মংছেন ছীং মংছিন একুশে পদক  এবং ২০১৪ সালে বাংলাদেশ বেতার চট্টগ্রাম কেন্দ্রের মুখ্যপ্রযোজক  লেখক গবেষক প্রভাংশু ত্রিপুরা বাংলা একাডেমী  পুরস্কার লাভ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*